দির্ঘ আট বছর বিনামুল্যে গণিত শিক্ষা দিচ্ছেন কুলফাডাঙ্গার জাহাঙ্গীর আলম!


তারেক মাহমুদ জয় ঃ ঝিনাইদহ সদর থানার কুলফাডাঙ্গা গ্রামের আবু তাহের ছেলে মো: জাহাঙ্গির আলম! পেশায় এক জন কীটনাশক ব্যবসায়ী, ডিগ্রী ভর্তি হবার পর বিভিন্ন কারণবশত লেখাপড়া করেননি, বর্তমান টিউশনি কোচিং বাণিজ্যের টাকা ছাড়া ভাবাই যায় না- ব্যতিক্রম মানসিকতার সাদা মনের মানুষ জাহাঙ্গীর আলম গণিত মত গুরুত্বপূর্ণ সাবজেক্ট- ফ্রি শিক্ষা প্রদান করছেন ২০১১ থেকে চলমান বর্তমানে ৪৭ জন শিক্ষার্থী নিয়মিত শিক্ষা দিচ্ছেন প্রথম ব্যাচ ফজরের নামাজ শেষে শুরু করেন! দ্বিতীয় ব্যাচ মাগরিব পর থেকে এশার আজান পর্যন্ত, জাহাঙ্গীর আলম নিজ খরচে তার নিজ বাড়ি পাশে একটা ঘর করে চেয়ার টেবিলের বৈদ্যুতিক ব্যবস্থা করেছেন। কুলফাডাঙ্গা ও পার্শ্ববর্তী মায়াধর পুর তেঁতুল বাড়িয়া ডাকাতিয়া গ্রামের অষ্টম ও দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থীরা শিক্ষা নিতে আসেন, জাহাঙ্গীর আলমের কাছে- এই এলাকার অনেক শিক্ষার্থীর পিতার সাথে কথা বলে জানতে পারা যায়- সত্যিই অসাধারণ একটা ভালো কাজ করছে জাহাঙ্গীর আলম! এছাড়াও জাহাঙ্গীর আলম ২০১৯ সন জুন মাস থেকে পঞ্চম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের শিক্ষা প্রদান করবেন। চলতি বছরে জাহাঙ্গীর আলম- আদ্-রুস প্রাইভেট,
মা সমাবেশের আয়োজন করেছিলেন- জাহাঙ্গীর আলম এর এই নিদর্শন এলাকার মানুষের মুখে মুখে প্রশংসনীয়,

– মা সমাবেশে — আয়োজন করেন 
সেখানে গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য- সন্তানের প্রতি অভিভাবকদের করণীয়: আলোচনা করেন- এবং হ্যান্ড বিল আকারে সকলের মায়েদের হাতে তুলেদেন নিম্নে:

(১) নিয়মিত বিদ্যালয় যাচ্ছে কিনা তা খেয়াল রাখা,
(২) নিয়মিত ক্লাসে পড়া হচ্ছে কিনা তা শিক্ষকদের কাছে জানা।
(৩) বাড়িতে সে ঠিকমত পড়াশোনা করছে কিনা সেদিকে খেয়াল রাখা।
(৪) পড়ার টেবিলে মোবাইল ফোন আছে কিনা লক্ষ্য রাখা।
(৫) সব বই পত্র আছে কিনা, যদি না থাকে যথাসম্ভব তাড়াতাড়ি কিনে দেওয়া।
(৬) খাতা কলম বাড়িতে বেশি করে কিনে রাখা।
(৭) গণিতের জন্য জ্যামিতি বক্স ক্যালকুলেটর যদি না থাকে ব্যবস্থা করা।
(৮) ভোরে উঠে পড়ছে! না লাইট জ্বালিয়ে ঘুমাচ্ছে খেয়াল রাখা।
(৯) রাত ১০ পর্যন্ত টেলিভিশন দেখতে দেওয়া যাবে না।
(১০) সময় মত খাবার খাচ্ছে কিনা তা খেয়াল রাখতে হবে।
(১১) ছেলে/মেয়ে সব সময় বকাঝকা না করে কাছে বসিয়ে সুন্দর করে বোঝাতে হবে।
(১২) খেয়াল রাখতে হবে বাজে ছেলে মেয়েদের সাথে মেলামেশা করে কি।
(১৩) সম্ভব হলে কোন ভাবেই মোবাইল ফোন কিনে দেবেন না।
(১৪) অতি তাড়াতাড়ি ইংরেজি প্রাইভেট এর ব্যবস্থা করে দেবেন।
(১৫) সম্ভব হলে রাতে পড়ার সময় সন্তানের পাশে থাকবেন।
(১৬) সন্ধ্যার পর কোন বন্ধু-বান্ধব থাকবে না।

********বাড়িতে পড়ার সময়******
(১) সন্ধ্যা থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত স্কুলে পড়া।
(২) ভোর বেলা ইংরেজি পড়া।
(৩) দিনের বেলায় অংক করা-

*********ভর্তি ইচ্ছু্ক ছাত্র /ছাত্রী শর্ত সমুহ:*******
(১)নামাজ পড়া বাধ্যতা মুলক 
(২)নিয়মিত পড়া করে আসতে হবে
(৩)মার্জিতো ড্রেস পরে আসতে হবে।
(৪)নিয়মিত স্কুলে যেতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here