শৈলকুপায় রাস্তা নির্মাণে অনিয়ম, কাজ বন্ধ করলো এলাকাবাসী

শাহীন আক্তার পলাশ, শৈলকুপা(ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি:

ঝিনাইদহের শৈলকুপায়
নিম্নমানের ইট, খোয়া ও বালু দিয়ে রাস্তা নির্মাণ করার অভিযোগ উঠেছে। এ
বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলীকে এলাকাবাসি অবহিত করলেও কোন ব্যবস্থা নেওয়া
হয়নি বলে অভিযোগ তাদের। ফলে এলাকাবাসী ক্ষুব্ধ হয়ে কাজ বন্ধ করে দিয়েছে।
জানা যায়, উপজেলার মৌকুড়ী মাষ্টার মোড় থেকে কাতলাগাড়ি বাজার পর্যন্ত
৩৬৬০ মিটার রাস্তা সংস্কার কার্যাদেশ পায় শৈলকুপার মেসার্স শিকদার
এন্টারপ্রাইজ এর ঠিকাদার মো¯তাক শিকদার । এই কাজের জন্য সরকারী ব্যায় ধরা
হয় প্রায় ২ কোটি ৬৫ লক্ষ টাকা সেইসাথে কাজের মেয়াদ ৩০ জুন।
সরেজমিনে দেখা যায় , একেবারেই নি¤œমানের ইট খোয়া দিয়ে চলছে এই রাস্তা
নির্মাণ কাজ। তদারকিতে উপজেলা প্রকৌশলী অফিসের কাউকে দেখা যায়নি।
ইচ্ছামত ঠিকাদার এসব নি¤œমানের সামগ্রী দিয়ে রাস্তা নির্মাণ কাজ
করছে।কিছু কিছু স্থানের কাজ রুলার করা হয়ে গেছে। দেখে মনে হচ্ছে
পোড়ামাটি রাস্তায় লেপন করা হয়েছে। বর্তমান এলাকাবাসিদের তোপের মুখে
ঠিকাদার সাময়িক কাজ বন্ধ রেখেছে।
উপজেলার গোয়ালবাড়ি এলাকার মোঃ জাহাঙ্গীর বলেন,এই পাকা রাস্তায় ব্যবহার করা
হচ্ছে নিম্নমানের ইট, খোয়া, বালু।এসব নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে রাস্তা
নির্মাণ করা হলে দ্রুত নষ্ট হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে তাই আমরা সাময়িক কাজ
বন্ধ করে দিয়েছি।আমাদের দাবী ভালমানের সামগ্রী দিয়ে রাস্তা নির্মাণ করা
হোক।
স্থানীয় বাসিন্দা মনিরুল ইসলাম বলেন, রাস্তাটি প্রথম থেকে অনিয়ম করা
হয়েছে। পঁচা ইটের উপর রোলার দিয়ে কাজ করা হচ্ছে। এই রাস্তা নির্মাণ শেষ
পর্যায়ে আসলেও কাজের মান নি¤œমুখী। কাজের দায়িত্বে থাকা ওয়ার্ক

এ্যাসিসটেন্টরা দেখেও না দেখার ভান করে। এ বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলীকে অবগত
করা হলেও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।
এ বিষয়ে রাস্তা নির্মান ঠিকাদার ও শিকদার এন্টারপ্রাইজের মালিক মোস্তাক
শিকদার বলেন, এই রাস্তা নির্মাণে কিছু খারাপ ইট গিয়েছে । তবে আমি খারাপ
ইটগুলো সরিয়ে নিতে বলেছি আর যে খারাপ ইটগুলো রুলার হয়ে গেছে সেখানেও
ভাল ইট দিয়ে কাজ করবো।
শৈলকুপা উপজেলা প্রকৌশলী বিকাশ চন্দ্র নন্দী বলেন, আমি শুনেছি নি¤œমানের
মালামাল দিয়ে কাজ হচ্ছে। এসব মালামাল ঠিকাদারকে সরিয়ে নিতে বলবো। আমি
এখনই সাইডে লোক পাঠাচ্ছি।কোন নি¤œমানের সামগ্রী দিয়ে কাজ করতে
দেয়া হবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published.