শেষবারের মতো দেখতে হাদিসুরের বাড়িতে মানুষের ঢল, কাল দাফন

দেশে পৌঁছেছে ইউক্রেনের অলিভিয়া বন্দরে রাশিয়ার রকেট হামলায় নিহত ‘বাংলার সমৃদ্ধি’ জাহাজের প্রকৌশলী হাদিসুর রহমান আরিফের (৩৪) মরদেহ।

সোমবার দুপুরে টার্কিশ এয়ারলাইনসের একটি কার্গো বিমানে মরদেহটি দেশে আনা হয়। এরপর মরদেহ হস্তান্তর শেষে দুপুর ২টার দিকে বরগুনার পথে রওয়ানা হয় স্বজনরা।

নিহত প্রকৌশলী হাদিসুর রহমান আরিফ বরগুনার বেতাগী উপজেলার হোসনাবাদ ইউনিয়নের কদমতলা গ্রামের রাজ্জাক হাওলাদারের ছেলে। তিনি বাংলাদেশি জাহাজ এমভি বাংলার সমৃদ্ধিতে প্রকৌশলী পদে কর্মরত ছিলেন।

এদিকে শেষবারের মতো হাদিসুরকে দেখতে নিজ বাড়িতে ভিড় জমাচ্ছে স্বজন, বন্ধু-বান্ধব ও প্রতিবেশীরা। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরাও আসছে তার বাড়িতে। হাদিসুরের এ মৃত্যু মেনে নিতে কষ্ট হচ্ছে স্থানীয়দের। তারা বলেন, এলাকার একজন মেধাবী হারালাম আমরা।

প্রতিবেশী মো. শাহাদাৎ হোসেন বলেন, গোবরে পদ্মফুল ছিলো হাদিসুর। প্রান্তিক গ্রামে থেকেও আলো ছড়িয়েছে সে। স্কুলজীবন থেকেই তুখোড় মেধাবী ছিলো হাদিসুর। তার মৃত্যুতে উজ্জ্বল এক নক্ষত্র খষে পড়ল। আমরা এক নক্ষত্র হারালাম।

অন্যদিকে, হাদিসুরের মরদেহ নিজ বাড়িতে পৌঁছানোর কথা রয়েছে রাত ১০টা নাগাদ। আগামীকাল সকাল ১০টায় বাড়ি সংলগ্ন মাঠে তার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। এরপর দাদা-দাদির কবরের পাশে দাফন করা হবে তাকে।

এ বিষয়ে হাদিসুরের চাচা মাকসুদুর রহমান ফোরকান বলেন, ইতোমধ্যে হাদিসুরে মরদেহটি বরগুনার পথে। বাড়িতে পৌঁছাবে রাত আনুমানিক ১০টা থেকে সাড়ে ১০টার দিকে। তার দাদা-দাদির কবরের পাশেই জায়গা নির্ধারণ করা হয়েছে। কাল জানাজা শেষে সেখানে শায়িত হবে হাদিসুর।

বার্তাবাজার/না. সা.

Leave a Reply

Your email address will not be published.