যশোরে ভারি বর্ষণে ২৫ হাজার হেক্টর জমির ফসল ক্ষতিগ্রস্ত ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদের প্রভাব

এস আর নিরব যশোরঃ
‘চাষিদের একের পর এক দূর্ভোগ লেগেই আছে। সব শেষ এবার! সরিষা, ধান, বিচলি সবই শেষ হয়ে গেলো। বৃষ্টির কারণে সব ধান বাড়ি আনা সম্ভব হয়নি। শুকনো ধান তলিয়ে পচে যাচ্ছে। দুই চোখে এখন খালি অন্ধকার।’ যশোরের বাঘারপাড়ার বিল জলেশ্বর মাঠে কয়েক দিনের টানা বৃষ্টিতে তলিয়ে যাওয়া জমি থেকে মুঠোবাঁধা ধান ডাঙ্গায় আনার সময় কৃষক পলান দেবনাথ আক্ষেপ করে এভাবেই কথাগুলো বলছিলেন। ক্ষতিগ্রস্ত এই কৃষকের বাড়ি উপজেলার রায়পুর ইউনিয়নের শালবরাট গ্রামে।
কৃষক পলান দেবনাথ জানান, দিন মজুরের কাজ করেই চলে তার ৫ সদস্যের সংসার। ২৭ কাঠা জমিতে তিনি এবার আমণের চাষ করেছিলেন। ১১ কাটার ধান ঘরে তুলেছেন। ৮ কাটার পাকা ধান কেটে ক্ষেতেই রোদে শুকাতে দিয়েছিলেন। টানা কয়েক দিনের বৃষ্টিতে ক্ষেতে হাঁটুপানি জমেছে। ভাসছে কাটা ধান। এখন বিচালি বাদ দিয়ে ধানের আগা কেটে বাড়িতে আনতে হবে। এছাড়াও ৮ কাঠা জমিতে সরিষা লাগিয়েছিলেন। পানি জমে সেগুলোও মরে যাওয়ার পথে। সব মিলিয়ে এ বর্ষণে তার ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকার মতো ক্ষতি হয়েছে।
ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদের প্রভাবে অসময়ের ভারী বর্ষণে যশোর অঞ্চলের কৃষকদের স্বপ্ন ফিকে হয়েছে। টানা তিনদিনের বৃষ্টিপাতে জেলায় প্রায় ২৫ হাজার হেক্টর জমির ফসল ক্ষতি হয়েছে। রোপা আমণ, বোরো বীজতলা, শীতকালিন সবজি, সরিষা, মসুর ডাল, পেঁয়াজ, আলুসহ বিভিন্ন আবাদের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হওয়ায় দিশেহারা কৃষকরা। কৃষকের স্বপ্ন চোখের জলে ভাসছে।
বাঘারপাড়া উপজেলার শালবরাট গ্রামের কৃষক বাচ্চু মোল্লা বলেন, তিনদিনের বৃষ্টিতে মাঠে মারা গেছি। ১৯ শতক জমির টমেটো, ১৮ শতক সরিষা ও দুইবিঘা জমির ধান পানিতে ভাসছে। অনেক কষ্টে আজ ধান কেটে ডাঙায় তুলেছি। ক্ষেতের টমেটো গাছ থেকে ঝরে পড়ছে। অন্তত ৫০ মণ টমেটোর ফলন পেতাম। বর্তমানে পাইকারী প্রতি কেজি টমেটো ৮০ টাকা। ব্যাপক ক্ষতি হয়ে গেল আমার।
একই এলাকার চাষি গোলাম মোস্তফা বলেন, আড়াই বিঘা জমির ধান কেটে ক্ষেতেই রেখেছিলাম। তিনদিনের বৃষ্টিতে সেই ধান পানিতে ভাসছে। ঘরে তুলতে পারিনি। একই সাথে এক বিঘা জমির সরিষা নষ্ট হয়েছে।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদের প্রভাবে অতিবৃষ্টিতে জেলায় ২৪ হাজার ৮৪১ হেক্টর জমির ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এরমধ্যে রোপা আমন ধান ৪ হাজার ১৪৮ হেক্টর, বোরো বীজতলা ২৫২ হেক্টর, আলু ২৫৬ হেক্টর, গম ২০৬ হেক্টর, পেঁয়াজ ২১৬ হেক্টর, মসুর ৪ হাজার ১৬৩ হেক্টর, সরিষা ৯ হাজার ৯১০ হেক্টর, সবজি ৪ হাজার ৬৫০ হেক্টর, ভুট্টা ১৫০ হেক্টর, মিষ্টি আলু ১৫ হেক্টর, চিনাবাদা ২৫ হেক্টর, সূর্যমুখী ১০ হেক্টর, মটরশুটি ২০০ হেক্টর, খেসারি ১৫০ হেক্টর, রসুন ৭৫ হেক্টর, ধনিয়া ১০ হেক্টর, আখ ৭৫ হেক্টর, মরিচ ৩শ’ হেক্টর ও পান ১০ হেক্টর রয়েছে। তবে ক্ষতির পরিমাণ এখনো নিরুপণ করতে পারেনি কৃষি বিভাগ।
ঘূর্ণিঝড় জওয়াদের প্রভাবে ভারি বৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকের ক্ষতিপূরণের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ কৃষক সংগ্রাম সমিতি। সংগঠনের যশোর জেলা শাখার সভাপতি আব্দুল খালেক ও সাধারণ সম্পাদক হাফিজুর রহমান একযুক্ত বিবৃতিতে বলেছেন, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় জওয়াদের প্রভাবে বৃষ্টিপাতে সারাদেশের ন্যায় যশোর জেলার কৃষির ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদেরকে প্রণোদনার আওতায় ক্ষতিপূরণ, ফসলের ন্যায্য মূল্য নিশ্চিতকরণ ও পুনরায় উৎপাদনে পর্যাপ্ত সুবিধার ব্যবস্থা করতে হবে।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর যশোরের উপ পরিচালক বাদল চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, ঘূণিঝড় জাওয়াদের প্রভাবে জেলায় প্রায় ২৫ হাজার হেক্টর জমির ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এরমধ্যে জেলায় ৫ শতাংশ রোপা আমণ ধান ঘরে তুলতে বাকী ছিল। অতিবৃষ্টিতে ৩ শতাংশ ক্ষেতের কাটা ধান নষ্ট হয়েছে। বাকী দুই শতাংশ দাঁড়ানো ধান কৃষক ঘরে তুলতে পারবে। এতে গোখাদ্যের ঘাটতি দেখা দিতে পারে। এছাড়াও অন্যান্য ফসলের ক্ষতি হয়েছে। হেক্টর প্রতি কৃষকের ৮-১০ হাজার টাকা ক্ষতি হতে পারে। তবে এখনো জেলার ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নির্ধারণ করা সম্ভব হয়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.