বাসে ছিনতায়ের পর ধর্ষণ, আটক ৫

গাজীপুরের বাসে ছিনতাই ও নারীকে ধর্ষণের ঘটনায় পাঁচজনকে আটক করেছে পুলিশ। শনিবার (৬ আগস্ট) রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন গাজীপুর জেলা পুলিশ সুপার এস এম শফিউল্লাহ তাৎক্ষণিক ভাবে তাদের নাম-পরিচয় জানাননি।

এম শফিউল্লাহ যুগান্তরকে বলেন, নওগাঁ থেকে স্বামী-স্ত্রী গাজীপুর সিটির ভোগরা বাইপাস এলাকায় এসে শনিবার ভোররাতে নামেন। সেখান থেকে তাকওয়া পরিবহনের মিনি বাসে ওঠেন তারা। এ সময় বাসটিতে বেশ কয়েকজন যাত্রী ছিলেন। বাসে স্টাফ ছিলেন দুজন। ভোগরা থেকে রওনা হয়ে তাকওয়া বাসটি চান্দনা চৌরাস্তা এলে সেখান থেকে তাকওয়া পরিবহনের আরও দুজন স্টাফ বাসে ওঠেন। বাসটি হোতাপাড়া পৌঁছায়।

এর আগে বাসে থাকা অন্যান্য যাত্রীরা নেমে যান। বাস হোতাপাড়া অতিক্রম করার পর সেখান থেকে স্বামীকে বাইরে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয় স্টাফরা। পরে বাঘের বাজার থেকেই পালাক্রমে ওই নারীকে ধর্ষণ করতে থাকেন তারা। মিনি বাসটি মহাসড়ক ধরে গড়গড়িয়া মাস্টার বাড়ি হয়ে ১ নং সিএনবি থেকে ঘুরিয়ে আবার গাজীপুর সিটির দিকে রওনা করে। সঙ্ঘবদ্ধ ধর্ষণ শেষে মহাসড়কের রাজেন্দ্রপুর চৌরাস্তায় ওই নারীকে বাস থেকে নামিয়ে দিয়ে পালিয়ে যায় তারা।

নারীর স্বামী পুলিশকে জানায়, পরে অভিযানে গ্রেফতার হয় অভিযুক্ত পাঁচজন। শ্রীপুর থানায় ওই নারীর স্বামী বাদী হয়ে মামলা করেন। পরে শ্রীপুর থানায় মামলা রুজুর পর শ্রীপুর থানা ও গাজীপুর জেলা ডিবি পুলিশ বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে পাঁচজনকে গ্রেফতার করেন।

এ বিষয়ে রোববার বিস্তারিত সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে জানানো হবে বলেও জানান তিনি।

বার্তাবাজার/এম এম

Leave a Reply

Your email address will not be published.