September 26, 2022

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলায় বাবুল লাইব্রেরীতে পরিকল্পিত অগ্নিসংযোগ করার পরে লাইব্রেরীর জমি দখল ও মালিককে অপহরণ চেস্টার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ প্রকাশ করেন লাইব্রেরীর মালিক মো. রুহুল আমিন (বাবুল)।

শনিবার সন্ধ্যায় মঠবাড়িয়া রিপোটার্স ক্লাবে ত এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।এ সময় ক্লাবের সভাপতি নাজমুল আহসান কবির ও সাধারণ সম্পাদক কামরুল ইসলাম আকনসহ প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিকস মিডিয়ার সাংবাদিকগণ উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে রুহুল আমিন (বাবুল) বলেন, প্রতিপক্ষরা পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে আমার লাইব্রেরীতে অগ্নিসংযোগ চালিয়ে সম্পূর্ণ ভস্মীভূত করে দেয়। ঘটনার দিন রাত অনুমান ৩টায় দোকান ঘরের বেড়ায় পেট্রোল ছিটিয়ে আগুন ধরিয়ে দেয়। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ৪টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার পূর্বেই আমার মেসার্স বাবুল লাইব্রেরী, স্টেশনারি, ফটোস্ট্যাট ও অফসেট প্রেস অ্যান্ড ডিজিটাল মিডিয়া সেন্টার আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে যায়। এতে ১ কোটি ৯৫ লাখ ২৬ হাজার ৩ শত টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়। এ ঘটনায় আদালতে মামলা চলমান রয়েছে।

অগ্নিকান্ডের পর পুনঃরায় আসামিরা আমার ভস্মীভূত হওয়া লাইব্রেরীর পজিশনটি দখলের পায়তারা চালিয়ে ঘর উত্তোলনসহ হুমকি দেয়। এ ব্যাপারে আমি থানা অভিযোগ দিলে শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য আইন শৃঙ্খলা বাহিনী সরেজমিনে এসে ঘর তুলার কাজ বন্ধ রাখতে বলে।

কিন্তু প্রতিপক্ষরা আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সামনেই আমাকে উৎশৃঙ্খলা ভাষায় গালিগালাজ করে। থানা পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নিয়ে আমাকে ঘটনাস্থাল থেকে চলে যেতে বলে।

আমি সদর রোডের কেন্দ্রীয় মন্দিরের সামনে দিয়ে বাসায় ফেরার পথে প্রতিপক্ষ চার থেকে পাঁচজন এসে আমাকে শূন্যের উপর জাগিয়ে তুলে নিয়ে যায়। কোনমতে তাদের হাত থেকে ছুটে রাস্তার পাশে থাকা মেয়র মহোদয়ের বাসভবনে দৌড়িয়ে গিয়ে প্রানে বেঁচে যাই। পরবর্তীতে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী ও মিডিয়াকর্মীদের সহায়তায় সেখান থেকে বাসায় পৌঁছাতে সক্ষম হই।

আমি প্রতিনিয়ত জীবন নিরাপত্তাহীনতা ভুগছি। সেই সাথে আমিসহ আমার পরিবারও চরম হুমকির মুখে রয়েছে। তাই এ সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে আমি প্রশাসন ও আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিও জানান তিনি।

বার্তাবাজার/এম.এম

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.