October 6, 2022

‘আমরা কেউ বাল্যবিয়ের পিড়িতে বসবো না, আমাদের বাল্যবিয়ে দিতে চাইলে আমরা প্রতিবাদ করবো। আমাদের বিয়েতে যৌতুক দিবো না, যারা যৌতুক চাইবে তাদের বয়কট করবো। অল্প বয়সে বিয়ে নয়, আমরা পড়ালেখা করে সমাজের কাছে মাথা উচু করে বাঁচবো।’ ফেনীর রামপুর বালিকা উচ্চ বিদালয়ে শিক্ষার্থীদের নিয়ে যৌতুক ও বাল্যবিয়ে বিরোধী সভায় এমনটা জানিয়েছে শিক্ষার্থীরা।

যৌতুক ও বাল্যবিয়ে বিরোধী ফোরাম ফেনীর আয়োজনে বুধবার (১৬ মার্চ) সকালে শহরের রামপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের মিলনায়তন কক্ষে সভায় সভাপতিত্ব করেন প্রধান শিক্ষক মো. আবুল হাশেম। সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে শিক্ষার্থীদের সচেতনায় দিকনির্দেশনামুলক বক্তব্য দিয়েছেন বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা (এনজিও) ফেয়ার’র নির্বাহী পরিচালক ও দৈনিক মানবজমিন’র জেলা প্রতিনিধি নাজমুল হক শামীম। অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালী বক্তব্য রাখেন যৌতুক ও বাল্যবিয়ে বিরোধী ফোরাম’র কেন্দ্রীয় সভাপতি বীর প্রতিক কর্ণেল (অব.) মোহাম্মদ দিদারুল আলম।

এনসিটিএফ ফেনী জেলা শাখার সদস্য ফারজানা আহমেদ অহনা’র সঞ্চালনায় অতিথি ছিলেন স্বেচ্ছাসেবী, মানবিক ও সামাজিক সংগঠন সহায়’র সভাপতি মঞ্জিলা আক্তার মিমি। বক্তব্য রাখেন রামপুর বালিকা উচ্চ বিদালয়ে সহকারী প্রধান শিক্ষক মো. আবদুল জলিল, সিনিয়ার শিক্ষিকা ফরিদা ইয়াসমিন রিজু। স্বাগত বক্তব্য রাখেন এনসিটিএফ ফেনী জেলা শাখার সভাপতি মাহবুবা তাবাসুম ইমা।

বিশেষ অতিথি এনজিও ফেয়ার’র নির্বাহী পরিচালক ও দৈনিক মানবজমিন’র জেলা প্রতিনিধি নাজমুল হক শামীম বলেন, ‘বাল্যবিয়ে একটি সামাজিক ব্যাধি। এফিডেভিট করে বয়স বাড়িয়ে বাল্যবিয়ের সাথে কিছু আইনজীবী ও তাদের মুহুরীরা জড়িত রয়েছে। ২০১৫ সালে আইন মন্ত্রনালয়ের এক আদেশে এফিডেভিটের মাধ্যমে বিয়ে পড়ানো ও নিবন্ধন করা নিষিদ্ধ করেছে সরকার। যারা বাল্যবিয়ের কার্যক্রমের সাথে জড়িত তাদের সকলকে আইনের আওয়তায় আনতে হবে।’

সভা শেষে বীর প্রতিক কর্ণেল মোহাম্মদ দিদারুল আলম ফাউন্ডেশনারে উদ্যোগে স্কুলের চারশ শিক্ষার্থীদের মাঝে কেএন ৯৫ মাস্ক বিতরণ করেন অতিথিবৃন্দ।

কামরুল/বার্তাবাজার/এম আই

Leave a Reply

Your email address will not be published.