October 1, 2022

পটুয়াখালীতে আগামীকাল (২১মার্চ) সোমবার উদ্বোধন হতে যাচ্ছে দেশের বৃহৎ ১ হাজার ৩ শ‘২০ মেগাওয়াট পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্ব-শরীরে উপস্থিত থেকে এ বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি উদ্বোধন করবেন। সেই সঙ্গে উদ্বোধন হবে দেশের প্রতিটি ঘরে ঘরে শতভাগ বিদ্যুতায়ন।

এদিকে প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি সাজানো হয়েছে নতুন সাজে। শেষ হয়েছে প্যান্ডেল সাজানোর কাজ। নিরাপত্তার চাঁদরে ঢেকে দেয়া হয়েছে পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার ধানখালী ইউনিয়ন।

২০১৪ সালে বাংলাদেশ নর্থওয়েস্ট পাওয়ার কোম্পানি ও চায়না ন্যাশনাল মেশিনারি ইমর্পোট অ্যান্ড এক্সর্পোট করপোরশনের (সিএমসি) মধ্যে ১৩২০ মেগাওয়াট পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মানে চুক্তি স্বাক্ষর হয়। ২০১৬ সালের ১৪ অক্টোবর পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার ধানখালীতে কয়লা ভিত্তিক এ বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মানের ভিত্তি প্রস্থর উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ২০২০ সালের ৮ ডিসেম্বর পুরো ১৩২০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে সক্ষম হয় এ পাওয়ার প্লানটি।

পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রকল্প পরিচালক শাহ গোলাম মওলা বলেন, প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে আমরা বিদ্যুৎ কেন্দ্রের অভ্যন্তর নতুন করে সাজাচ্ছি। ইতিমধ্যে প্যান্ডেল তৈরীর কাজও শুরু হয়েছে। পায়রা ১৩২০ মেগাওয়াট কয়লা ভিত্তিক তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র দক্ষিনাঞ্চলে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবারহে সবচেয়ে বড় ভুমিকা পালন করবে।

পটুয়াখালী জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শহিদুল্লাহ বলেন, প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে সর্বোচ্চ গুরুত্ব সহকারে নিরাপত্তা পরিকল্পনা প্রণয়ন করা হয়েছে। এই নিরাপত্তার মধ্যে কোভিট প্রটোকলও রয়েছে। সব পরিকল্পনা বাস্তবায়নের লক্ষে কাজ সম্পুর্ণ। এরই মধ্যে সাদা পোশাকের নিরাপত্তা বাহিনীসহ চার স্তরবিশিষ্ট নিরাপত্তা বাহিনী মাঠে কাজ করছে।

পটুয়াখালী জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামাল হোসেন বলেন, শুধু পায়রা ১৩২০ মেগাওয়াট তাপ বিদ্যুতই নয়, ওইদিন দেশের শতভাগ বিদ্যুতায়ন উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী। তার আগমনকে ঘিরে এরই মধ্যে আমরা সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছি।

নয়ন/বার্তাবাজার/এ.আর

Leave a Reply

Your email address will not be published.