নারীর সাফল্যের নানা গল্প

কোভিড-১৯-এর সারা বিশ্বের মতো আমাদের দেশেও সার্বিক পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। সেখান থেকে বাদ

পড়েনি নারী জনগোষ্ঠীও। তবে এই সময়ে আমাদের দেশের নারীদের সাফলতাও কিন্তু কম নয়!

নানা প্রতিকূলতার পেরিয়ে বরাবরই বাংলার নারীদের এগিয়ে যাওয়ার ইতিহাস নতুন নয়। সেই দিক থেকে কোভিডকালীন ২০২১ সালেও নারীদের সফলতা এসেছে একাধিক সেক্টরে। ২০২১ সালে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উইটসা এমিনেন্ট পার্সনস অ্যাওয়ার্ড-২০২১ পুরস্কার পেয়েছেন।

ডিজিটাল বাংলাদেশ কর্মসূচি প্রণয়ন ও তা বাস্তবায়নে বলিষ্ঠ নেতৃত্বদান এবং তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে বাংলাদেশের মানুষের জীবনমান উন্নয়নে অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বিশ্বের ৮০টি দেশের সদস্যভুক্ত সংগঠন ‘ওয়ার্ল্ড ইনফরমেশন টেকনোলজি অ্যান্ড সার্ভিসেস অ্যালায়েন্স’ তথ্যপ্রযুক্তির অলিম্পিকখ্যাত ‘উইটসা ২০২১’ পুরস্কারে ভূষিত হন।

ম্যাগসেসে পুরস্কার জয়: বাংলাদেশের বিজ্ঞানী ড. ফেরদৌসী কাদরী এশিয়ার নোবেল হিসেবে খ্যাত ম্যাগসেসে পুরস্কার পেয়েছেন। তিনি আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র বাংলাদেশের (আইসিডিডিআরবি) জ্যেষ্ঠ বিজ্ঞানী। কলেরার টিকা নিয়ে গবেষণা ও সাশ্রয়ী দামে টিকা সহজলভ্য করে লাখো প্রাণ রক্ষায় কাজ করেছেন তিনি। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার টিকাবিষয়ক বৈজ্ঞানিক উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য ছিলেন তিনি। র‌্যামন ম্যাগসেসে পুরস্কার কমিটির পক্ষ থেকে বলা হয়, ‘লাখো মানুষের উপকারে টিকার উন্নয়নে তার নিবেদিত ভূমিকার জন্য’ এ পুরস্কার দেওয়া হলো।

যুক্তরাজ্যে স্থপতির স্বর্ণপদক জয়: বাংলাদেশের স্থপতি মেরিনা তাবাসসুম। তিনি ১৬ নভেম্বর জিতে নেন যুক্তরাজ্যের মর্যাদাপূর্ণ স্বর্ণপদক-২০২১। তার কাজের মূল্যায়ন ও স্বীকৃতিস্বরূপ তিনি এ পুরস্কার পান।

দেওয়ান তাহমিনা হক: দেলদুয়ার উপজেলার দেওলী ইউনিয়ন পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান দেওয়ান তাহমিনা হক। এর আগে তিনি উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ছিলেন। ঐ পদ থেকে পদত্যাগ করে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিজয়ী হয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.