October 5, 2022

নরসিংদীতে তিন পর্বে সাতদিনব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি, মুক্তির মহানায়ক, স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস-২০২২ বৃহস্পতিবার (১৭ মার্চ) স্বাস্থ্যবিধি মেনে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করা হয়েছে।

জেলা প্রশাসন আয়োজিত ১৬ মার্চ থেকে দুই দিন ব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচীর মধ্যে ছিল; ১৬ মার্চ সকল সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে আলোকসজ্জাকরণ।
১৭ মার্চ সকাল ৯টায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে জেলা প্রশাসন কার্যালয় প্রাঙ্গনে স্থাপিত জয় বাংলা চত্বরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ। সকাল সাড়ে ৯টায় জয় বাংলা চত্বরে স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিশুদের নিয়ে কেক কেটে মিষ্টি মুখ করানো। সকাল ১০ টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমির নতুন ভবনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন ও আদর্শ নিয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে আলোচনা সভা, আলোকচিত্র প্রদর্শনী ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

বিকেল ৪টায় ৫০টি জাতীয় পতাকা নিয়ে সুবর্ণজয়ন্তী র‌্যালী ও বীর মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশ এবং সাতদিনব্যাপী মুক্তির উৎসব ও সুবর্ণজয়ন্তী মেলা-২০২২ উদ্বোধন করেন শিল্পমন্ত্রী অ্যাডভোকেট নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন এমপি।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- নরসিংদী জেলা পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল মতিন ভূঞা, নরসিংদীর পুলিশ সুপার কাজী আশরাফুল আজীম পিপিএম, সিভিল সার্জন ডা. মোঃ নুরুল ইসলাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা ৭১সেক্টর কমান্ডার ফোরাম নরসিংদী জেলা শাখার সভাপতি আব্দুল মোতালিব পাঠান প্রমুখ। উদ্বোধনের পর মুক্তিযোদ্ধাদের সমন্বয়ে স্বাধীনতার ৫০ বছর উপলক্ষে ৫০টি পতাকা নিয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের একটি মিছিল জেলার বিভিন্ন সড়ক পরিভ্রমন করেন।

পরবর্তীতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণের পথে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ও মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত বাংলাদেশের ৫০ বছরের সাফল্য ও অর্জনকে সামনে রেখে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে ১৭ মার্চ থেকে ২৩ মার্চ পর্যন্ত সাতদিনব্যাপী ‘মুক্তির উৎসব ও সুবর্ণজয়ন্তী মেলা’র উপলক্ষে বিকাল সাড়ে ৪টায় আয়োজিত বর্ণাঢ্য র‌্যালী সার্কিট হাউজ থেকে শুরু করে শিল্পকলা একাডেমি প্রাঙ্গনে আয়োজিত মেলা অঙ্গনে গিয়ে শেষ হয়। সেখানে উদ্বোধনী এবং আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন মাননীয় শিল্প মন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন এমপি।

প্রধান অতিথির ভাষণে মন্ত্র্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন এমপি বলেন, ভাগ্যের নির্মম পরিহাস জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব আমাদের মাঝে আজকে নেই তিনি থাকলে হয়তো অনেক আগেই আমাদের দেশ অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ হয়ে যেতো। তার পরও আমরা ভাগ্যবান যে তাঁর সুযোগ্যা কন্যার নেতৃত্বে মন্ত্রণালয়সহ প্রত্যেকটা সূচক আজকে বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন খাতের সূচকের চাইতে অনেক দূর এগিয়ে গেছে বাংলাদেশ।

তিনি মুক্তিযুদ্ধে অবদানের জন্য নরসিংদীর সাবেক সাংসদ প্রয়াত মোছলেহউদ্দিন ভূঞা, বর্তমান এমমি লে.কর্নেল (অব:) মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম হিরু বীর প্রতীক সহ মুক্তিযুদ্ধের সকল সংগঠক, নেতা-কর্মী মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে বলেন, স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু যখন দেশে ফেরৎ আসলেন এবং দেশ পুনর্গঠনের কাজে যখন তিনি নিয়োজিত হলেন- তখন রাস্তা-ঘাট, খাদ্য, কোন কিছুই ছিল না। গুদাম খালি, টাকশাল খালি, ব্যাংক খালি। তারা আগুন দিয়ে সব পুড়িয়ে দিয়েছে।

তিনি বলেন, সারা নয়মাস তারা বিভিন্নভাবে আমাদের মা-বোনদের ওপরে নির্যাতন করেছে। অবশেষে নয়মাসে আমরা স্বাধীন হলাম। আমরা একটা গৌরবময় জাতি যে, প্রতিবছর আমরা দুইটা দিবস পালন করি। একটা স্বাধীনতা দিবস, আরেকটা বিজয় দিবস। আমরা বিশ্বের মধ্যে একটা গৌরবময় জাতি যে, গণতান্ত্রিক উপায়ে নির্বাচন করে দেশকে স্বাধীন করেছি। প্রকৃত পক্ষে ৭মার্চের ঘোষণা থেকেই বাংলাদেশ স্বাধীন হয়।

জেলা প্রশাসক আবু নইম মোহাম্মদ মারুফ খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ‘মুক্তির উৎসব ও সুবর্ণজয়ন্তী মেলা’র উদ্বোধনী সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন- নরসিংদীর পুলিশ সুপার কাজী আশরাফুল আজীম পিপিএম, নরসিংদী জেলা পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল মতিন ভূঞা, নরসিংদী পিবিআই-এর পুলিশ সুপার মোঃ এনায়েত হোসেন মান্নান, নরসিংদীর সিভিল সার্জন ডা. মোঃ নুরুল ইসলাম, নরসিংদী সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ ও জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি প্রফেসর মোহাম্মদ আলী, নরসিংদী চেম্বারের প্রেসিডেন্ট মোঃ আলী হোসেন শিশির সিআইপি প্রমুখ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন বিশিষ্ট আবৃতিকার জহিরুল ইসলাম মৃধা।

মন্ত্রী আলোচনা সভা শেষে মেলায় স্থাপিত বিভিন্ন স্টল ঘুরে দেখেন। মেলায় সরকারি দপ্তরসহ সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন বিভাগের ৮১টি স্টল স্থাপন করা হয়।
জেলা শিল্পকলা এলাকাডেমি মিলনায়তনে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নরসিংদী’র জেলা প্রশাসক আবু নইম মোহাম্মদ মারুফ খান।

সকালে জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক উপসচিব ভূঁঞা মোহাম্মদ রেজাউর রহমান ছিদ্দিকী’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন কাজী আশরাফুল আজীম পিপিএম, নরসিংদী জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল মতিন ভূঞা, সিভিল সার্জন মোঃ নূরুল ইসলাম, নরসিংদী সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর গোলাম মোস্তাফা মিয়া, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মোতালিব পাঠান প্রমুখ। আলোচনা শেষে বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় বিজয়ী শিক্ষার্থীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরণ করা হয়।

এছাড়া জেলার প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে আলোচনা সভা, রচনা প্রতিযোগিতা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। সকল মসজিদ, মন্দির, গির্জা ও বিভিন্ন ধর্মীয় উপাসনালয়ে জাতির পিতা ও তাঁর পরিবারের সদস্যগণের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত ও প্রার্থনা করা হয়।

সকালে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুস্পার্ঘ অর্পনের পর স্বাস্থ্যবিধি মেনে জয়বাংলা চত্বরে জাতির পিতার জন্মদিন উপলক্ষে কেক কেটে শিশুদের মিষ্টিমুখ করান জেলা প্রশাসক আবু নইম মোহাম্মদ মারুফ খান। এসময় পুলিশ সুপার কাজী আশরাফুল আজীম পিপিএম, সিভিল সার্জন ডা. মোঃ নুরুল ইসলাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা ৭১কমান্ডার ফোরাম সভাপতি আব্দুল মোতালিব পাঠান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

তারেক/বার্তাবাজার/না. সা.

Leave a Reply

Your email address will not be published.