নতুন দুটি বিভাগ পদ্মা ও মেঘনা নদীর নামেই হবে: প্রধানমন্ত্রী

কোনো জেলার নামে নয়, নতুন দুটি বিভাগ পদ্মা ও মেঘনা নদীর নামেই হবে বলে উল্লেখ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, কুমিল্লা ও তার আশপাশের জেলা নিয়ে মেঘনা এবং ফরিদপুর ও তার আশপাশের জেলা নিয়ে পদ্মা নদীর নামে বিভাগ করা হবে।

গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় তিনি এ কথা বলেন। সভা শেষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর অনুশাসন তুলে ধরে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, সভায় ১ হাজার ৫৩৮ কোটি ১০ লাখ টাকা ব্যয়ে কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের সমন্বিত অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রকল্পটি নিয়ে আলোচনায় প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী এবং একনেকের চেয়ারপারসন শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে গণভবনের সঙ্গে সংযুক্ত হয়ে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে শেরেবাংলা নগরস্থ এনইসি সম্মেলনকক্ষে এই একনেক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় মোট ১০ প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে, এর মধ্যে পাঁচটি সংশোধিত।

পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম জানান, সারা দেশে ৫৬০টি মডেল মসজিদ নির্মাণ করা হচ্ছে। একনেক সভায় এর সংশোধনী অনুমোদন হয়। প্রকল্পটি নিয়ে আলোচনায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, মডেল মসজিদগুলোতে ইসলামিক সব ধরনের শিক্ষা দিতে হবে, ইসলামি সাংস্কৃতিক শিক্ষাও দিতে হবে। যেন যুবকরা জঙ্গিবাদে ঝুঁকে না পড়ে। প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দিয়েছেন সঠিকভাবে প্রকল্প বাস্তবায়নের, যাতে কাজের মান ভালো হয়। তাছাড়া নদী ড্রেজিং করার সময় বাঁধের যেন ক্ষতি না হয় সেজন্য পানিসম্পদ মন্ত্রণালয় এবং নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়কে সমন্বয় করে কাজ করতে হবে।

বারবার প্রকল্প সংশোধনের বিষয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, প্রকল্প বাস্তবায়নে কিছু সমস্যা রয়েছে, দুর্নীতি হয়। এছাড়া প্রকল্প গ্রহণের আগে যখন সার্ভে করা হয়, তখন অনেক সময় এটি সঠিকভাবে করা হয় না। অনেকে জমি দিতে চায় না। প্রকল্প বাস্তবায়নে দেরি শুধু বাংলাদেশেই নয়, অনেক দেশেই হয়।
সভায় অনুমোদিত অন্য প্রকল্পগুলোর মধ্যে মোংলা বন্দর থেকে চাঁদপুর-মাওয়া-গোয়ালন্দ হয়ে পাকশী পর্যন্ত নৌ-রুটের নাব্যতা উন্নয়ন প্রকল্পের প্রথম সংশোধনী অনুমোদন। ৯৫৬ কোটি টাকার প্রকল্পটিতে ব্যয় ৩৩৪ কোটি টাকা বাড়িয়ে ১ হাজার ২৯০ কোটি টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। সভায় ১ হাজার ৫৩৮ কোটি টাকা ব্যয়ে কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের সমন্বিত অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প, ৪৫৬ কোটি টাকা ব্যয়ে পাঁচটি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে (সিলেট, বরিশাল, রংপুর, রাজশাহী এবং ফরিদপুর) বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিট স্থাপন প্রকল্প, ২ হাজার ৫৪১ কোটি ৬৪ লাখ টাকা ব্যয়ে ডিজিটাল গভর্নমেন্ট ও অর্থনীতি সমৃদ্ধিকরণ প্রকল্প, ৩২২ কোটি ৯৯ লাখ টাকা ব্যয়ে সেচ অবকাঠামো পুনর্বাসন প্রকল্প, ১ হাজার ১৮২কোটি ৫৫ লাখ টাকা ব্যয়ে ক্লাইমেট স্মার্ট অ্যাগ্রিকালচার অ্যান্ড ওয়াটার ম্যানেজমেন্ট (বিডব্লিউডিবি অংশ) প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।এছাড়া সভায় ১ হাজার ৪৬৫ কোটি টাকা ব্যয়ে বৃহত্তর নোয়াখালী জেলার পল্লি অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প-৩ পর্যায়ের প্রথম সংশোধনী অনুমোদন হয়েছে। এতে ব্যয় বেড়েছে ৩১৩ কোটি টাকা। সভায় ১৬২ কোটি ৪৬ লাখ টাকা ব্যয়ে বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের আওতায় চট্টগ্রাম ও রাজশাহীতে ক্রীড়া স্কুল প্রতিষ্ঠা প্রকল্পের তৃতীয় সংশোধনী অনুমোদন দেওয়া হয়। এতে ব্যয় বেড়েছে ৩১ কোটি ৮৬ লাখ টাকা। এছাড়া সভায় ৭০ কোটি ৬০ লাখ টাকা ব্যয়ে জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের আইসিটি অবকাঠামো, মানবসম্পদ ও প্রযুক্তি দক্ষতা উন্নয়ন প্রকল্পের তৃতীয় সংশোধনী অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এতে ব্যয় বেড়েছে ১৩ কোটি ৮৪ লাখ টাকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.