September 26, 2022

ঝিনাইদহ সদর উপজেলার বানিয়াকান্দর গ্রামে গৃহবধুকে ধর্ষনের পর ছবি তুলে টাকা দাবী করার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ঝিনাইদহ সদর থানা পুলিশের দারস্থ হয়েছে ভিকটিম। ঝিনাইদহ প্রেসক্লাবে এসে দুই সন্তানের জননী ওই গৃহবধু অভিযোগ করেন, তার স্বামী সুর তরঙ্গ নামে একটি মাইক কোম্পানীতে চাকরী করেন।

গত ১৯ মার্চ রাতে তার স্বামী জেলা প্রশাসকের একটি অনুষ্ঠানে দায়িত্ব পালন করছিলেন। আর তিনি দুই সন্তান নিয়ে পাগলাকানাই ইউনিয়নের বানিয়াকান্দর আবাসন এলাকার নিজ বাড়িতে ছিলেন।

স্বামীর অনুপস্থিতির সুযোগে রাতে ভাঙ্গা জানালা দিয়ে ফকিরাবাদ গ্রামের আলাল উদ্দীনের ছেলে সলোক (১৯) ঘরে প্রবেশ করে ধারালো ছুরি ধরে তাকে ধর্ষন করে। জীবনের ভয়ে ভিকটিম এ কথা গোপন করে রাখে। সলোক ধর্ষনের সময় ছবি তুলে রাখায় সেই ছবি দেখিয়ে ক্রমাগত টাকা দাবী করতে থাকে।

নইলে নগ্ন ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকী দিতে থাকে সলোক। ভিকটিমের শ্বাশুড়ি বিদেশ থাকায় তিনি গৃহবধুর একাউন্টে টাকা পাঠায়। এ খবর জানতে পেরে সলোক টাকার জন্য একের পর এক ফোন করতে থাকে। লম্পট সলোকের ব্র্যক মেইলিংয়ে অতিষ্ঠ হয়ে সোমবার রাতে আত্মহত্যার চেষ্টাও করে ওই গৃহবধু। বিষয়টি তার স্বামী জানতে পেরে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ঝিনাইদহ সদর থানা পুলিশের দারস্থ হয়।

বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় পাগলাকানাই ইউনিয়নের মেম্বর আসাদুজ্জামান সুজন বলেন, ধর্ষক সলোক এখন পলাতক। এলাকায় তার নামে নানা অপরাধ কাজের সঙ্গে জড়িত থাকার কথা শোনা যায়। তিনিও মানুষের কাছে ধর্ষনের খবর শুনেছেন বলে জানান। এ বিষয়ে ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি শেখ মোঃ সোহেল রানা জানান, এমন কোন অভিযোগ এখনো আসেনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। তবে ধর্ষিতার স্বামী জানান, তার স্ত্রী সদর থানার নারী ও শিশু নির্যাতন হেল্প ডেক্সে তার ঘটনার বর্ননা দিয়ে জবানবন্দি দিয়েছেন।

খাইরুল/বার্তাবাজার/এম.এম

Leave a Reply

Your email address will not be published.