দৌলতদিয়া ঘাটে তীব্র যানজট, দুর্ভোগ কয়েকগুণ

দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে একদিকে নদীতে ডুবোচর অন্যদিকে ঘাট সংকটের পাশাপাশি সপ্তাহ ব্যাপি অব্যাহত তীব্র সিরিয়ালের কারণে এরুটে চলাচলকারি চালক ও যাত্রীদের দুর্ভোগ কয়েকগুণ বেড়ে গেছে। ফেরিতে যানবাহন উঠানামায় ধীর গতি ও যানবাহনের বাড়তি চাপে দীর্ঘ সিরিয়ালের সৃষ্টি হয়েছে।

ঘাট সূত্রে জানা যায়, বর্তমানে এ নৌ-বহরে ছোট-বড় ১৮টি ফেরি চলাচল করছে। এছাড়াও দৌলতদিয়ায় ৭টি ফেরিঘাটের মধ্যে ১ ও ২ নম্বর ঘাটটি পূর্বেই বন্ধ ছিল, নতুন করে নদীতে নাব্যতা সংকটের কারণে ৬ নম্বর ঘাটটিও বন্ধ রয়েছে দীর্ঘ দিন যাবৎ। ৩, ৪, ৫ ও ৭ নম্বর ঘাট দিয়ে যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে। এরমধ্যে মধ্যে দুয়েকটি ঘাটও বিভিন্ন কারণে কিছু সময়ের জন্য বন্ধ হয়ে যায়। বর্তমানে নদীতে পানি কমে যাওয়ায় ফেরিঘাটের পকেট পথগুলো নিচু হয়ে গেছে। ফলে যানবাহন লোড আনলোডে দীর্ঘ সময় লাগছে।

সরেজমিন বুধবার (১৬ মার্চ) দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে দৌলতদিয়া ঘাট এলাকা ঘুরে দেখা যায়, ফেরি ঘাটের জিরোপয়েন্ট থেকে দৌলতদিয়া-খুলনা মহাসড়কের প্রায় ৪ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে পণ্যবাহী ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান ও যাত্রীবাহী বাসের দীর্ঘ সিরিয়াল রয়েছে। এছাড়াও ঘাটকে যানজট মুক্ত রাখতে ঘাট থেকে প্রায় ১৪ কিলোমিটার দুরে রাজবাড়ী-কুষ্টিয়া আঞ্চলিক মহাসড়কের ৫কিলোমিটার এলাকায় প্রায় ৪শতাধিক পণ্যবাহী যানবাহন আটকে রাখা হয়েছে। সবমিলে ফেরি পারের অপেক্ষায় আটকে আছে সাড়ে ৮শতাধিক যান।

গোপালগঞ্জ থেকে আসা বাসের সুপার ভাইজার রোকন মিয়া বলেন, বেলা ১২টায় দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায় এসে সিরিয়ালে রয়েছি। ফেরি পেতে কমপক্ষে ৪ থেকে ৫ ঘন্টা করে সময় লাগছে। প্রচন্ড গরমে বাসের ভিতর যাত্রীদের অনেক কষ্ট হচ্ছে। বিশেষ করে নারী ও শিশুদের বেশি ভোগান্তি হয়। গাড়িতে দীর্ঘ সময় বসে থেকে যাত্রীরা বিরক্ত হয়ে যাচ্ছে।

সাতক্ষীরা থেকে আসা ট্রাক চালক মুন্নাফ শিকদার বলেন, মঙ্গলবার দৌলতদিয়া ঘাট অভিমুখে আসতে গেলে গোয়ালন্দ মোড়ে সন্ধ্যার দিকে সিরিয়ালে আটকে দেয়। সেখানে সারারাত থেকে ভোরে ঘাটের দিকে এসেও সিরিয়ালে পড়ি। বুধবার দুপুর দেড়টা বাজলেও ফেরি ঘাট হতে ৩ কিলোমিটার দুরে আছি। ফেরি চলাচলের যে পরিস্থিতি তাতে আজকেও নদী পার হতে পারবো বলে মনে হয় না। জ্যামে আটকে থেকে রাতভর খাবার সমস্যা, বাথরুমের সমস্যায় পড়তে হয়। এতো কষ্ট করে আর গাড়ি চালাতে মন চায়না। জানি ঘাটে আসলে এমন ভোগান্তি পোহাতে হবে, তারপরও উপায় নেই , ঘরে বসে থাকলে তো আর পেট চলবে না।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কপোর্রেশন (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া ঘাট শাখার ব্যবস্থাপক (বানিজ্য) প্রফুল্য চৌহান বলেন, এ নৌরুটে পর্যাপ্ত ফেরি চলাচল করছে। নদীতে নাব্যতা সংকটের কারণে পানির লেয়ার নিচে নেমে যাওয়ায় ফেরি চলাচলসহ লোড-আনলোডে অনেক সময় সময় লেগে যাচ্ছে। এছাড়া কয়েক দিন ধরে যানবাহনের চাপ বৃদ্ধি পাওয়ায় সিরিয়ালের সৃষ্টি হয়েছে। তবে যাত্রীবাহী বাস ও কাচাপন্য বোঝাই ট্রাক অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পারাপার করা হচ্ছে।

মেহেদী/বার্তাবাজার/এম আই

Leave a Reply

Your email address will not be published.