তাড়াইলে প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বন্ধ হলো বাল্যবিয়ে

কিশোরগঞ্জের তাড়াইলে প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বাল্য বিয়ে বন্ধ করা হয়ছে।বৃহস্পতিবার (১০মার্চ) উপজেলার রাউতি ইউনিয়নের ভাওয়াল গ্রামের সুভাষ সাহার বাড়িতে চলছিলো মেয়ের বিয়ের আয়োজন। প্যান্ডেল, তোরণ,অতিথি আপ্যায়নের যাবতীয় কাজ সম্পন্ন করে চলছিলো বাল্য বিয়ের প্রস্তুতি।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লুবনা শারমীনের নির্দেশনায় থানা পুলিশের সহায়তা নিয়ে বিয়েবাড়িতে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা মাহমুদা সুলতানা হাজির হয়ে ভেঙে দেন বাল্যবিয়ে।

 

 

 

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা মাহমুদা সুলতানা জানান,কাগজপত্র অনুযায়ী সুভাষ সাহার মেয়ে এখনও প্রাপ্ত বয়স হয়নি বিধায় ভেঙে দিতে হলো বাল্য বিয়ে।তাছাড়া সুভাষ সাহা এবং তার ভাই দুলাল সাহা দুজনেই মুচলেকা দিয়েছে বাল্যবিয়ে প্রতিরোধে সচেস্ট থাকবেন।তাই কোনও রকম জরিমানা না করেই বিয়েটা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

সুভাষ সাহার ভাই দুলাল সাহা তার ভাইজির বিয়ে বন্ধের ব্যাপারে জানান,প্রাপ্ত বয়স হতে কয়েকমাস বাকি ছিল। প্রশাসন খবর পেয়েছে এটা আমরা অবগত হওয়ার পরপরই বিয়ে বন্ধ করে দেই।

মুকুট দাস/বার্তাবাজার/এম.এম

Leave a Reply

Your email address will not be published.