সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২২

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বীরভূম জেলার রামপুরহাটের বাগুই গ্রামে ভাদু শেখ নামে স্থানীয় এক তৃণমূল নেতাকে খুনের ঘটনার পর দুর্বৃত্তদের দেওয়া আগুনে দগ্ধ হয়ে মারা গেছেন ৮ জন। এ ঘটনায় যাদের গ্রেফতার করা হয়েছে তাদের না ছাড়লে স্বামীর কবরে মাটি দেবেন না বলে জানিয়েছেন ভাদু শেখের স্ত্রী কেবিলা বিবি।

কেবিলা বিবি আরও জানান, পুলিশের তদন্তে আমাদের বিশ্বাস নেই। রামপুরহাট থানার প্রধান কর্মকর্তা ভাল লোক নয়। ভাদুর সম্ভাব্য খুনিদের রাজনৈতিক পরিচয় জানতে চাইলে কেবিলা বিবি বলেন, ওরাও তৃণমূল। আমার স্বামীর চামচা ছিল।কিন্তু এখন যাদের গ্রেফতার করা হয়েছে তারা কোন অপরাধ করেনি। কাজেই তাদের না ছাড়লে আমি স্বামীর কবরে মাটি দেব না।

ভারতীয় গণমাধ্যম সূত্রে জানাযায়, সোমবার (২১ মার্চ) রাত সাড় ৮টার দিকে খুন হন ভাদু শেখ। এর পরপরই ছড়িয়ে পড়ে অস্থিরতা। এদিকে, এ ঘটনার পর জরুরি বৈঠক ডেকে জেলার কয়েকজন শীর্ষ পুলিশ কর্মকর্তাকে প্রত্যাহার এবং ঘটনাস্থলে একজন মন্ত্রীকে পাঠানোর নির্দেশ দেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

ভাদু শেখের খুনের ঘটনার পর তৃণমূল কর্মীরা প্রথমে ওই এলাকার জাতীয় সড়ক অবরোধ করে এবং হত্যাকারীকে ধরতে বিভিন্ন এলাকায় তল্লাশি শুরু করে। এরপরই ওই গ্রামের একটি এলাকায় আগুন লাগার খবর পাওয়া যায়। রাতভর সেই আগুন নেভানোর চেষ্টা করে দমকল বাহিনী। পরে ঘটনাস্থল থেকে ৮ জনের দগ্ধ দেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

স্থানীয়দের অভিযোগ, ভাদু শেখের খুনের বদলা নিতেই তার অনুসারীরা গ্রামে আগুন লাগিয়েছে। এতেই হতাহতের ঘটনা ঘটে। যদিও পুলিশ গোটা বিষয়টি নিয়ে নীরবতা পালন করছে। আর এ ঘটনায় বিশেষ তদন্তদল গঠনের নির্দেশ দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

ধারণা করা হচ্ছে, কয়লা খাদানের টাকা ভাগাভাগি নিয়েই ভাদু শেখ খুন হন। এদিকে বিধানসভার বাজেট অধিবেশনে বিরোধী বিজেপি বিধায়করা এদিন অধিবেশন বয়কট করে রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতির জন্য মুখ্যমন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করেন। সূত্র: আনন্দবাজার

বার্তাবাজার/এম.এম

Leave a Reply

Your email address will not be published.