চলন্ত ট্রেন থেকে পড়ে ঢাবি শিক্ষার্থীর মৃত্যু

চলন্ত ট্রেন থেকে পড়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের(ঢাবি) মাহাবুব আলম নামের এক শিক্ষার্থী নিহত হয়েছেন। নিহত মাহাবুব আলম আদর ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের মার্কেটিং বিভাগের ছাত্র ছিলেন। বৃহস্পতিবার (১৭ মার্চ) সকালে পাবনার জেলার পাকশি সেতুতে এই ঘটনা ঘটে বলে জানা যায়।

নিহত মাহাবুব জয়পুরহাট জেলার ক্ষেতলাল উপজেলার সদর ইউনিয়নের মো. হান্নান মিঠুর ছেলে। পুলিশ বলছে, কুষ্টিয়ার হার্ডিঞ্জ ব্রিজের ওপরে ট্রেন থেকে পড়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মাহাবুব আলমের মৃত্যু হয়েছে। তার সঙ্গে বন্ধুরা থাকলেও তারা কোন তথ্য দেয়নি এমনকি তারা লাপাত্তা।

পোড়াদহ রেলওয়ে থানা পুলিশ বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে মাহবুব আলমের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেছে।

কুষ্টিয়ার পোড়াদহ রেলওয়ে থানার (ওসি) মনজের আলী জানান, ওই শিক্ষার্থীর নাম মাহবুব আলম। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মহসীন হলে থাকতেন তিনি। তার বাড়ি জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল থানায়। তিনি জয়পুরহাট জেলা পরিষদের প্যানেল মেয়র মো. আব্দুল হান্নান মিঠুর ছেলে। তার কাছে থাকা আইডি কার্ড ও তার পরিবারের লোকজনের সঙ্গে কথা বলে এ তথ্য জানা গেছে।

নিহতের পরিবার ও রেল পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গেল রাতে চিত্রা এক্সপ্রেসে করে বন্ধুদের সঙ্গে কুষ্টিয়ার লালন আখড়াবাড়িতে আসছিলেন মাহবুব আলম। রাত ১টার দিকে হার্ডিঞ্জ ব্রিজের ওপরে সেলফি তুলতে গিয়ে পড়ে যায় সে। তার মুখ ও দুই হাটুতে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। মাহবুবের মৃত্যুর পর তার পাশে বন্ধুদের পাওয়া যায়নি। মারা যাওয়ায় তার বন্ধুরা তাকে ফেলে রেখেই চলে যান।

নিহতের বাবা আব্দুল হান্নান মিঠুর সঙ্গে মোবাইলফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বন্ধুদের সঙ্গেই মাহবুব কুষ্টিয়ার লালন আখড়াবাড়িতে যাওয়ার উদ্দেশ্যে গিয়েছিল। রাতে মোবাইল ফোনে ওর মায়ের সঙ্গে এমনটিই কথা হয়েছিল। তবে ওর মা বন্ধুদের পরিচয় জানতে চাইলে সে এ ব্যাপারে কিছুই বলেননি। আমি এখন কুষ্টিয়ার দিকে রওয়ানা হয়েছি।

সরোয়ার/বার্তাবাজার/এম.এম

Leave a Reply

Your email address will not be published.