September 26, 2022

মাদারীপুরের রাজৈরে খাল খনন বন্ধ করে দিয়ে ৩০ লাখ টাকা বিল তুলে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে পানি ব্যবস্থাপনা সমবায় সমিতির খাল খনন কমিটির সভাপতির বিরুদ্ধে। অর্ধেক খনন করায় কোন কাজেই আসছে না খালটি। এতে চাষাবাদে পানি সংকট ও কৃষিপণ্য আনা নেয়ায় ভোগান্তি হওয়ায় ক্ষুব্ধ চাষীরা। বাস্তবায়নকারী কর্তৃপক্ষ এলজিইডি বলছে, বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মাদারীপুর এলজিইডি ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশ সরকারের (জিওবি’র) অর্থায়নে ২০২০-২১ অর্থ বছরে রাজৈর উপজেলার বাজিতপুর ইউনিয়নে কৃষকদের সেচ সুবিধার প্রয়োজনে দুটি খাল খননের উদ্যোগ নেয়া হয়। এতে ‘বুলগি’র বিলের দেড় কিলোমিটার ও কমলাপুর খালের আড়াই কিলোমিটার খাল খনন করার কথা রয়েছে। কিন্তু খাল দুটির কাজ অসমাপ্ত রেখেই ৩০ লাখ টাকা বিল তুলে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে।

স্থানীয় বাসিন্দা বিনয় কৃষ্ণ রায় বলেন, ‘আমাদের কমলাপুরের খালটি গত বছর সরকারি ভাবে খনন করার উদ্যোগ নেওয়া হয়। কিন্তু খালটি পুরোটা খনন না করেই ফেলে রাখা হয়েছে।

একই এলাকার সুখচান সাহা বলেন, খালটি সুন্দরভাবে খনন করে দুইপাড়ে রাস্তা তৈরী করে দিলে আমাদের এলাকাবাসীর অনেক উপকার হবে।

আরেক বাসিন্দা সৈকত সরকার বলেন, শুনেছি ঠিাকাদার কাজ সব না করেই পুরো বিল নিয়ে গেছে। সরকারি কর্মকর্তারা কিভাবে কাজ শেষ না করলেও পুরো কাজের বিল দিয়ে দেয়। রাষ্ট্রের টাকার এমন অপচয়। আমরা দাবী করছি, খালটি আরো ভালভাবে খনন করে দুই পাড়ে রাস্তা তৈরী করুক। যাতে সবাই চলাচল করতে পারে। আবার খালের সুবিধাও পেতে পারে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যক্তি বলেন, এই খালটির খনন কাজের ঠিকাদার ছিল ইলিয়াস হাওলাদার। তিনি এবার বাজিতপুর ইউনিয়নে চামচ প্রতীক নিয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচন করে হেরে গেছেন। এলাকায় তার প্রভাবও রয়েছে। তাই প্রকল্পের কাজ সঠিক ভাবে না করেই বিল নিয়ে গেছে। এই অঞ্চলের শতকরা একশ ভাগই মানুষ হিন্দু ধর্মাবলম্বী বিধায় সে এই অনিয়ম করে পার পেয়ে যাচ্ছে। কারণ এখানে কেউ প্রতিবাদ করার লোক নেই।

রাজৈর উপজেলা প্রকৌশলী জহিরুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

তবে বাজিতপুর ইউনিয়নের পানি ব্যবস্থাপনা সমবায় সমিতির খাল খনন কমিটির সভাপতি ইলিয়াস হাওলাদারের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, আমি সঠিক ভাবে কাজ করেছি। কাজ করেই বিল নিয়েছি। আপনি এই কথা লিখে দেন।

আকাশ/বার্তাবাজার/এম.এম

Leave a Reply

Your email address will not be published.