September 26, 2022

ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে অনুষ্ঠিত হবে ফিনানশিয়াল একশন টাস্ক ফোর্সের (এফএটিএফ) বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। বিশ্লেষকদের ধারণা, ওই বৈঠকে বৈশ্বিক জঙ্গীবাদে অর্থ সরবরাহ ও অর্থ পাচার পর্যালোচনায় অসহযোগীতার কারণে পাকিস্তানকে কালো তালিকাভুক্ত করা হতে পারে।

জানা যায়, ২০১৮ সাল থেকেই এফএটিএফ’র ধূসর তালিকায় অবস্থান করছে পাকিস্তান। বৈশ্বিক জঙ্গীবাদে অর্থ সরবরাহ ও অর্থ পাচার পর্যালোচনায় অসহযোগীতার কারণে এই তালিকায় দেশটির নাম তোলা হয়। এতে করে পাকিস্তানের আমদানি, রফতানি, রেমিটেন্স ও আন্তর্জাতিক অনুদানের পরিমাণ কমেছে দেশটিতে। কালো তালিকাভুক্ত হলে এর পরিমাণ আরও কমতে পারে।

ক্ষমতায় বসার পর থেকেই পাকিস্তানি প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান এফএটিএফ’র এই তালিকা থেকে দেশটিকে মুক্ত করার প্রচেষ্টা করছেন। তিনি এখনো সেই কার্যক্রমে কোনো সফলতা পাননি।

এফএটিএফ’র কালো তালিকাভুক্ত হওয়ার আশঙ্কা নিয়ে পাকিস্তানি অর্থনীতিবীদ ডক্টর নাফি সরদার বলেন, যদি পাকিস্তানকে কালো তালিকাভুক্ত করা হয়, তাহলে বিভিন্ন নিষেধাজ্ঞা আরোপিত হবে। যা দেশের অর্থনীতির জন্য অত্যন্ত খারাপ হবে। ২০১৮ সালে পাকিস্তানকে ধূসর তালিকায় রাখা হয়। ওই অর্থ বছরে ক্ষতি হয়েছে ৩৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

Leave a Reply

Your email address will not be published.