আ.লীগের কার্যালয়সহ শতাধিক স্থাপনা উচ্ছেদ; আকাশের নিচে তিন শতাধিক মানুষ

জামালপুরের সরিষাবাড়ী রেলওয়ে জংশন এলাকায় রেলওয়ের সম্পত্তিতে অবৈধভাবে থাকা বিভিন্ন স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছ। রবিবার (১৩ মার্চ) সকাল থেকে দিনব্যাপী এ উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়। উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেন, বাংলাদেশ রেলওয়ের ঢাকা বিভাগের ভূসম্পত্তি কর্মকর্তা মোঃ শফিউল্লাহ। এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি ফাইযুল ওয়াসিমা নাহাত।

উচ্ছেদ অভিযানে উপজেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়, উপজেলা প্রেসক্লাব, দোকানপাট, পাকা, সেমি-পাকা, টিনের বসতভিটাসহ শতাধিক বিভিন্ন স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয় ও ফলজ গাছপালা গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।

এসব ছোট ছোট ঘর উচ্ছেদের ফলে সেখানে বসবাসরত, দিনমজুর, ভিক্ষুক, শ্রমিক, হকার, কাজের বুয়া, রিকশাচালকসহ কর্মজীবী নারী-পুরুষ মাথা গোঁজার ঠাঁ

ই নিয়ে পড়েছে বিপাকে। বয়োবৃদ্ধ ও শিশুসন্তান নিয়ে খোলা আকাশের নিচেই বসে আছে প্রায় ৩ শতাধিক মানুষ। এখন অনিশ্চয়তায় কাটবে তাদের রাত।

৭০ বছরের ভিক্ষুক সাত্তার বলেন, আমার কোন জায়গা জমি কিছুই নেই। স্ত্রী সন্তান নিয়ে পলিথিন দিয়ে বেড়া দিয়ে থাকি। সেটাও ভাইঙ্গা দিলো। অহন কই থাকমু।

গৃহকর্মীর কাজ করা বেনু বেগম বলেন, আমার ঘর থেকে কিছুই বের করতে পারি নাই। অন্যেও বাড়ীতে কাজ করে কিছু পয়সা জমিয়ে ছিলাম সেগুলোও ভাঙ্গার নিচে পরে আছে। খুজে পাচ্ছি না। এখন কোথায় থাকবো, কি খাবো। খোলা আকাশের নিচে থাকা ছাড়া আর কোন উপায় নেই।

ভ্যান চালক মাফিজুর রহমান অভিযোগ করে বলেন, আমরা ভূমিহীন শ্রমিক মানুষ। কখনো কামলা দেই আবার কখনো ভ্যান ভাড়া নিয়ে চালাই। রেল আমাদের উপর জোর জুলুম চালিয়ে কোন সময় বা আগে থেকে কিছু না জানিয়ে হঠাৎ করে এসে আমাদের ঘর সহ সব কিছু ভেঙ্গে দিলো। এখন আমাদের সরকারের কাছে দাবী জানাচ্ছি যে সরকারী ঘর দিয়ে পুর্ণবাসন করে দেয়া হোক।

ঢাকা বিভাগের সম্পত্তি কর্মকর্তা মোঃ শফিউল্লাহ বলেন, রেল ষ্টেশনের উন্নয়ন কাজের লক্ষ্যে রেলের জায়গায় থাকা অবৈধ সকল স্থাপনা ভেঙ্গে ফেলা হয়েছে। এ কাজ পুরো শেষ না হওয়া পর্যন্ত চলমান থাকবে।

 

মনির/বার্তাবাজার/এম আই

Leave a Reply

Your email address will not be published.