September 28, 2022

“সাম্প্রতিক লক্ষ্মীপুর কমলনগর উপজেলার চরকাদিরা ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের বিষয় ভাইরাল হয়ে গেছে। সাংবিধানিক আইনবহির্ভূত বিভিন্ন বক্তব্য দিয়েছে বলে অভিযোগ উঠে। যদিও পরবর্তীতে তা অসত্য বলে প্রমানিত হয়েছে। সেটিও ফেক আইডির কারণে হয়েছে”।

নেট দুনিয়ায় অবাধ বিচরণের সুবাদে একটি চক্র ফেসবুককে ব্যবহার করছে নিজেদের অপকর্মের হাতিয়ার হিসেবে। এ সুযোগে ব্যক্তিগত, বিভিন্ন নামে-বেনামে একাধিক আইডি খুলে ও অফিশিয়াল আইডি বা পেজ হ্যাক করে ব্যক্তি,সমাজ ও রাষ্ট্রবিরোধী কর্মকাণ্ড, আপত্তিকর স্ট্যাটাস, যৌন হয়রানি, পর্নোগ্রাফি, গুজবসহ আরও অনেক অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে এ মাধ্যমে।

এ ছাড়া সাম্প্রতিক সময়ে ফেইক আইডি’র মাধ্যমে ভয়ঙ্করভাবে বাড়ছে এ হয়রানি। এতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে প্রশাসন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, সামাজিক সম্মানি ব্যক্তিবর্গ ও রাজনৈতিক দলের রাজনীতিবিদরা। আইনের কাছে গিয়েও সহজে মিলছে না প্রতিকার। মেয়ে বা পুরুষের নামে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে (ফেসবুক) ফেইক অ্যাকাউন্ট খুলে প্রতারণা ও হয়রানি করছে এ চক্রটি।

প্রযুক্তির সহজলভ্যতার কারণে একদিকে যেমন বেড়েছে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা, সে সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে সাইবার অপরাধও। ফেসবুক,মেসেঞ্জার,টেলিগ্রাম, ভাইভার, ইন্সটাগ্রাম, হোয়াটসঅ্যাপ, টুইটার, স্নাপচ্যাট,লিঙ্কডইন,ইমো,টিকটক,ইউটিউবসহ জনপ্রিয় সব অ্যাপের মাধ্যমে চলছে তথ্যের আদান-প্রদান। সামাজিক যোগাযোগে প্রযুক্তিগত অপরাধের অন্যতম মাধ্যম হলো ফেসবুক। যেহেতু বিশাল একটি জনগোষ্ঠী এ মাধ্যমটি ব্যবহার করছে তাই সেখানে অপরাধ হওয়ার আশঙ্কাও বেশি।

জেলার কমলনগর উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চলে এমনই প্রযুক্তিগত অপরাধ ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। উপজেলার চরকাদিরা ইউনিয়নের ফজুমিয়ারহাট এলাকায় এখন ফেক ফেসবুক আইডির ছড়াছড়ি পরিলক্ষিত হচ্ছে। নামে-বেনামে ফেক আইডি খুলে পুলিশ প্রশাসন ও রাজনীতিবিদ থেকে শুরু করে সামাজিক ব্যক্তিবর্গ নিয়ে নানা কুরুচিপূর্ণ মিথ্যা বানোয়াট তথ্য প্রচার করে সামাজিক ভাবে হেয়প্রতিপূর্ন করে আসছে একটি চক্র। তারা ফেসবুকে ফেইক আইডি খুলে এসব নোংরা কাজে লিপ্ত হচ্ছে। এসব ফেইক আইডিগুলো চরকাদিরা ইউনিয়নের ফজুমিয়ারহাট এলাকাসহ উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চলে উঠতি বয়সি একদল বিপথগামী যুবক ব্যবহার করছে বলে ধারনা করা হচ্ছে।

ফেইক আইডিগুলোর মধ্যে ‘আবুল খায়ের, রুনা আক্তার সাথী, সজিব হাসান ও লালন ফকির’ সহ ১০-১২ টি আইডির অপপ্রচার বিভ্রান্তিকর বেফাঁস মন্তব্যের যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে ফজুমিয়ারহাট এলাকাসহ উপজেলার সামাজিক খ্যাতিমান সম্মানী ব্যক্তিবর্গ। রীতিমত সামাজিক সম্মান মর্যাদা নিয়ে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে এসব জনগোষ্ঠী।

এসব আইডিতে ব্যক্তিগত ছবি ব্যবহার করে মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্য ছড়িয়ে দিচ্ছে ফেসবুকে।তথ্য প্রযুক্তি আইন বা নীতিমালা না মেনে ফেসবুক নানা গুজব ছড়িয়ে দিচ্ছে। এসব ফেইক আইডি থেকে পুলিশ বাহিনী, প্রশাসন, বিচার ব্যবস্থা, সরকার ও রাষ্ট্র বিরোধী নানা গুজব ছড়িয়ে জনমনে নানা প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে। যখন তখন মনে যা আসছে তা সোসাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে দিচ্ছে। এখনই এসব সাইবার ক্রিমিনালদের সনাক্ত করা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর জন্য জরুরি হয়ে পড়েছে।

স্থানীয় ভাবে জানা গেছে, আবুল খায়ের,সজীব হাসান ও রুনা আক্তার সাথী’ এই তিনিটি সহ অনেকগুলো ফেইক আইডি ফজুমিয়ারহাট বাজারের চতুর্পাশের কিছু যুবক ব্যবহার করছে বলে ধারনা করা হচ্ছে। এসব আইডিগুলো কে বা কাহারা চালাচ্ছে তা সন্দেহজনক ভাবে কয়েকজন যুবক আমাদের টার্গেটে রয়েছে।আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে সার্বিক সহযোগিতা করার জন্য আমরা প্রস্তুত রয়েছি’।

কমলনগর থানা ওসি সোলাইমান বলেন, ফেক আইডি দিয়ে নেট জগতে সাইবার অপরাধের সাথে জড়িত হওয়ার চেষ্টা করছে কিছু অপরাধী। আমরা এসব অপরাধীদের চিহ্নিত করার চেষ্টা করছি। এবং তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান ওসি।

রাসেল/বার্তাবাজার/এম আই

Leave a Reply

Your email address will not be published.