October 3, 2022

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ তৈরির লক্ষ্যে দুই বছরের জন্য জাতীয় সরকারের দাবি জানিয়েছেন। বুধবার (৩ মার্চ) জাতীয় প্রেসক্লাবে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের উদ্যোগ ‘স্বাধীনতার প্রথম পতাকা উত্তোলন দিবসের ৫১তম বছর উদযাপন উপলক্ষে বাঙালির তৃতীয় জাগরণের মাইলফলক’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় এ দাবি জানান তিনি।

ডা. জাফরুল্লাহ বলেন, আমি ১ বছর আগের থেকে বলছি যে, অন্তুত পক্ষে দুই বছরের জন্য জাতীয় সরকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে। কারণ জাতীয় সরকার প্রতিষ্ঠিত না হলে এদেশে কোনো ক্রমেই গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনা যাবে না, কোনো ক্রমেই সুষ্ঠু নির্বাচন হবে না। আর জাতীয় সরকারের সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো আওয়ামী লীগ। সেই সরকারে আওয়ামী লীগের প্রতিনিধিও থাকবে। হয়ত প্রতিনিধি শেখ রেহানাও হতে পারেন। আমি জানি না, সেটা আওয়ামী লীগের ব্যাপার।এছাড়া জাতীয় সরকারে অন্যান্য আমাদের সকল রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধি থাকবে, বিশিষ্ট দুই-চারজন নাগরিকও থাকতে পারেন। তারা সত্যিকার অর্থে ন্যায়-নীতি প্রতিষ্ঠা করবেন।

ডা. জাফরুল্লাহ বলেন, আজকে আমাদের দেশে আন্দোলন গড়ে না উঠার একটা কারণ হচ্ছে- এই সিপিবি। আর আমি বিএনপির কথা বলতে চাই না। অনেকে মনোক্ষুন্ন হন, সত্য কথা হজম করার শক্তি খুব বেশি লোকের নাই। সেটা আমার বক্তব্য। ভুল করলে আমিই করেছি, তার জন্য দু:খ পাওয়ার কিছু নাই, কষ্ট পাওয়ার কিছু নাই।

বাংলাদশের জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডি) সভাপতি আ স ম আবদুর রব বলেন, স্বাধীনতার ৫০ বছর পর বাংলাদেশ কোন পথে? যাদের কোনো অবদান ছিলো না আজকে সেইসব পরগাছা-আগাছা, আগাছা সরকার, পরগাছা মন্ত্রিসভা এদেরকে উচ্ছেদ করে ফেলে দিতে হবে, বঙ্গোপসাগরে ছুঁড়ে ফেলে দিতে হবে এদেরকে। আর আমাদের পরিস্কার বক্তব্য, এই সরকারের অধীনে আমরা কোনো নির্বাচন করব না। আমরা এই সরকারকে মানি না। অনুষ্ঠানে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত থাকার কথা থাকলেও অসুস্থতার জন্য তিনি আসতে পারেননি বলে আয়োজকরা জানান।

বার্তাবাজার/জে আই

Leave a Reply

Your email address will not be published.