September 28, 2022

ব্রিটিশ রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের দ্বিতীয় পুত্র প্রিন্স অ্যান্ড্রু। যৌন হয়রানির দায়ে রাজ পরিবারের পদ-পদবি আগেই হারিয়েছেন। এতদিন যুক্তরাষ্ট্রে যৌন হয়রানির মামলায় লড়ছিলেন তিনি। এবার সেই অভিযোগ থেকে রেহাই পাচ্ছেন এই রাজপুত্র। মামলাটি আদালতের বাইরে নিষ্পত্তি হয়েছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

২০০১ সালে ভার্জিনিয়া জিউফ্রে নামের এক নারীকে যৌন হয়রানি করেন অ্যান্ড্রু বলে অভিযোগ করা হয়। সে সময় ওই নারীর বয়স ছিলো ১৭ বছর। যদিও এই অভিযোগ অস্বীকার করে আসছেন প্রিন্স অ্যান্ড্রু।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, মঙ্গলবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) যুক্তরাষ্ট্রের জেলা আদালতে দাখিল করা একটি নথির তথ্য বলছে, প্রিন্স অ্যান্ড্রু ও জিওফ্রে আদালতের বাইরে ১ কোটি ১২ লাখ ব্রিটিশ পাউন্ডে (বাংলাদেশি মুদ্রায় ১৪০ কোটি ১৮ লাখ টাকার বেশি) মামলাটি নিষ্পত্তি করেছেন।

বিচারক লুইস এ কাপলানের কাছে এ সংক্রান্ত একটি চিঠিও পাঠানো হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, যৌন নির্যাতনের শিকার ভুক্তভোগীদের অধিকার রক্ষায় কাজ করা জিওফ্রের দাতব্য প্রতিষ্ঠানে ‘যথেষ্ট পরিমাণ অর্থ’ দেবেন প্রিন্স অ্যান্ড্রু। ব্রিটিশ প্রিন্স কখনো জিওফ্রের চরিত্রে দাগ লাগাতে চাননি। তবে তিনি স্বীকার করেন, জিওফ্রে নির্যাতনের পাশাপাশি মানুষের অন্যায় আক্রমণের শিকার হয়েছেন।

ব্যাংকক পোস্টের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, যৌন হয়রানি মামলার নিষ্পত্তিতে দেওয়া অর্থ প্রদান করেছেন ব্রিটিশ রানী। এ নিয়ে ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে ব্রিটেনে।

প্রিন্স অ্যান্ড্রুর প্রতিনিধিরা বলেছেন, আদালতের বিবৃতির বাইরে তাদের এ ব্যাপারে কোনো মন্তব্য নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published.