October 3, 2022

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে প্রায় দেড় মাস বন্ধ থাকার পর ১২৮টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কোমলমতি শিক্ষার্থীরা ক্লাসে ফিরেছে। বুধবার সকালে বিদ্যালয়গুলো খোলা হয়। এরপর ক্লাসে ফিরতে থাকে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা। ক্লাস শুরু হওয়ার আগেই শিক্ষার্থীদের কোলাহলে মুখরিত হয়ে উঠে স্কুল গুলো।

জানা যায়, করোনা ভাইরাসের ঊর্ধ্বগতি হওয়ায় গত ২১ জানুয়ারি আবারও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি ঘোষণা করে সরকার। এরপর গত ২২ ফেব্রুয়ারি মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিকসহ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গুলো খুলে দেওয়া হয়। তবে প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলো ২ মার্চ খোলা হয়।

শিক্ষার্থীরা বলেন, অনেক দিন বাসায় থাকতে থাকতে আমাদের বিরক্ত লাগছে। আজকে স্কুল খোলাতে খুবই আনন্দ লাগছে। বন্ধুদের সবাইকে দেখতে পাচ্ছি। স্যাররা আজকে আমাদের নিয়ে গল্প এবং পড়া দিয়েছে। এতে করে আনন্দ লাগছে। স্কুল খোলা থাকলে আমাদের কাছে ভালো লাগে। বন্ধ থাকলে বাড়িতে থাকতে থাকতে বিরক্ত লাগে।

ছাতিয়ানতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোঃ মিজানুর রহমান বলেন, আজকে আমাদের স্কুল খোলা হয়। সকালে উৎসবমুখর পরিবেশে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা এসেছে। প্রতিটি শ্রেনিতে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি ছিল লক্ষ্য করার মতো।

ভূইরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মো.জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, আজকে স্কুল খোলার খবর পেয়ে শিক্ষার্থীরা আনন্দমুখর পরিবেশে স্কুলে এসেছে। তাদের দেখে আমাদেরও ভালো লাগছে।

উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো. বেলায়েত হোসেন জানান, আজ (বুধবার) থেকে উপজেলার ১২৮টি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং ৬৪টি কিন্ডারগার্টেন স্কুল প্রায় দেড় মাস বন্ধ থাকার পর খোলা হয়েছে। প্রথম শ্রেণি থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের সশরীরে ক্লাস হবে প্রতিদিন (সপ্তাহে ছয় দিন)। সব বিদ্যালয় দুই ধাপে পরিচালিত হবে। তবে কোনো সমাবেশ হবে না। একান্ত প্রয়োজন ছাড়া অভিভাবকদের বিদ্যালয়ে আসা নিরুৎসাহিত করতে হবে। টিকা দেওয়া ছাড়া কোনো শিক্ষক বিদ্যালয়ে উপস্থিত হতে পারবেন না

মিজানুর রহমান/বার্তাবাজার/এম.এম

Leave a Reply

Your email address will not be published.