October 1, 2022

হওয়ার কথা ছিল ফুটপাত, হয়েছে দোকান। মিরপুর ১১ নম্বরের নান্নু মার্কেট এর সামনের একটি রাস্তার দৃশ্য এটি। ফুটপাতের জায়গায় গড়ে ওঠা ছোট ছোট দোকান থেকে আবার আদায় হচ্ছে মোটা অংকের টাকা। রাস্তাটিতে ফুটপাত না থাকায় দুর্ভোগের শেষ নেই মানুষের। নাজমুল হাসান রাজু ও গাজী ফখরুলের ক্যামেরায় বিস্তারিত জানাচ্ছেন তাজনুর ইসলাম।

বছরখানেক আগে ঢাকা উত্তর সিটির অভিযানে দখলমুক্ত করা হয় মিরপুর ১১ নম্বরের বেশ কয়েকটি রাস্তা ও ফুটপাত। কথা ছিলো রাস্তার পরিধি বাড়িয়ে করা হবে ফুটপাত। তাতো হয়নি উল্টো উচ্ছেদের পর আবারো হয়েছে দখল, তৈরি হয়েছে দোকান। একেতো জনবহুল এলাকা তার উপর হাঁটার রাস্তা নেই। স্কুলগামী শিক্ষার্থী থেকে শুরু করে এলাকার সব বয়সী মানুষের দুর্ভোগ যেন নিত্যসঙ্গী।

স্থানীয় এক পথচারী জানান, রাস্তার এই বেহালদশার ফলে এখন যদি একসিডেন্ট হয়ে যায় দায়ী কে থাকবে।

এক শিক্ষার্থীর মা বলেন, যেহেতু এখানে, এখন স্কুলে যেতে হলে তো ফুটপাত ছাড়াই যেতে হবে। রোডের মধ্যে দিয়ে যেতে হয়, অনেক সময় গাড়ি হর্ণ বাজায়, বাচ্চা হয়তো ঠিকমত চলতে পারে না। তারপরও যাই। গাড়ি ধাক্কা ধাক্কি লাইগা যায়, গায়ের উপর এসে পড়ে। ফুটপাত থাকলে আমাদের থেকে বড় যারা আছে তাদেরও সুবিধা হবে। অন্যান্য মানুষ যারা থাকে এখানে, আশেপাশে যারা তাদেরও সুবিধা হবে।

অভিযোগ ফুটপাতের জায়গায় গড়ে তোলা এসব দোকান চালুর আগেই লেনদেন হয়েছে লাখ লাখ টাকা। নেপথ্যে থাকা একজনের সঙ্গে কথাও হয়। শুরুতে এড়িয়ে যান বিষয়টি। এক পর্যায়ে স্বীকার করেন দোকান নির্মাণ আর অর্থ লেনদেনের সঙ্গে তার সংশ্লিষ্টতার কথা।

যারা গরীব ওদের সাহস নাই। ওরা যদি ২০ হাজার ৫০ হাজার টাকা খরচ করে যে বানাবে ওই সাহস তাদের নাই। তখন এনি বললো যে কি করবেন, আমি কইলাম ভাই সবারে নিয়া বসেন। বইসা বলেন যে, ঠিক আছে এভাবে কইরা বানাইয়া ফেলতে। যদি টাকা পয়সা যদি লাগে আমি দিবো এর বিনিময়ে আমাকে কি দিবেন ঠিক আছে। মানে এত টাকা আমি লাগাবো, তখন বললো ভাই গরিব মানুষ। আমি বললাম হ্যাঁ যখন আমি টাকা দিব না, পরে তখন এই কথাই আসবে যে আমি টাকাকে এমনি দিছি।

এ ব্যাপারে বক্তব্য জানতে যোগাযোগ করা হয় স্থানীয় কাউন্সিলরের সঙ্গে। কয়েক দফা কার্যালয়ে গিয়েও তাকে পাওয়া যায়নি। বন্ধ পাওয়া যায় তার মোবাইল ফোনও।

ঠিক যেখানে হাঁটার জন্য দরকার ফুটপাত সেখানেই তৈরী হচ্ছে দোকানপাট। যানজটের ভোগান্তি কিংবা দুর্ঘটনার ঝুঁকি নয় সাধারণ মানুষ চান নিরাপদ চলাচলের ফুটপাত।

বার্তাবাজার/না.সা

Leave a Reply

Your email address will not be published.