সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২২

ভিক্ষাবৃত্তি করেই সংসার চালাতেন। প্রতিদিন ভিক্ষা করে যে টাকা পাওয়া যেত তা দিয়ে পরিবারের খরচ মিটিয়ে বাকিটা রেখে দিতেন। এভাবে জমতে জমতে সেই টাকার পরিমাণ হয়ে গেল লাখের বেশি। কিন্তু টাকার পরিমাণ জানতে পারলেন না কনিকা মোহান্ত নামের সেই ভিক্ষুক।

কনিকার মরদেহ উদ্ধার করতে গিয়ে স্থানীয়রা দেখলেন তার পাশে তিনটি ট্রাঙ্ক দেখতে পান স্থানীয়রা। ট্র্যাঙ্ক খুলতেই তাদের চোখ বড় হয়ে যায়। ট্রাঙ্ক ভর্তি টাকা দেখে তারা যেন মরদেহের কথা ভুলে যায়। মরদেহ উদ্ধার না করে টানা গুনতে থাকেন স্থানীয়রা।

ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের উত্তর দিনাজপুরে। উত্তর দিনাজপুরের ইসলামপুরের ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে মা ও দুই বোনের সঙ্গে থাকতেন কনিকা। ত্রিপল ও বাঁশ দিয়ে তৈরি ঘরে বসবাস করতেন তারা। পাঁচদিন আগেই মৃত্যু হয় কনিকার। কিন্তু অসুস্থ মা ও বোন সেতা বুঝতে পারেনি।

মঙ্গলবার সকালে কনিকা এলাকার একজন খুঁজতে গেলে জানা যায় তিনি মারা গেছেন। তার মৃত্যুর খবরে হাজির হন এলাকাবাসী। এরপর কনিকার মরদেহের পাশে থাকে তিনটি ট্রাঙ্কে চোখ পড়ে তাদের। ট্রাঙ্ক খুলতেই চোখ কপালে উঠে যায় প্রতিবেশীদের।

ট্রাঙ্কে পাওয়া গেল লাখের বেশি টাকা। এর মধ্যে সব নগদ টাকার নোট নয়, বেশিরভাগই খুচরা পয়সা। মরদেহের কথা ভুলে টাকা গুনতে ব্যস্ত হয়ে পড়ে প্রতিবেশীরা। ওই তিন ট্রাঙ্ক থেকে কয়েক লাখ টাকা উদ্ধার করা হয়। ভিক্ষা করে যে কেউ এত টাকা জমাতে পারেন, তা কেউই ভাবতে পারেননি।

এসব টাকা যেন কেউ আত্মসাৎ করতে না পারে সে ব্যবস্থায় করে দিচ্ছে প্রতিবেশীরা। এই টাকা ব্যাংকে রাখা হবে। এই টাকা দিয়ে কনিকার অসুস্থ মায়ের চিকিৎসা ও তারা যেন চলতে পারে সে ব্যবস্থা করা হবে।

The post ভিক্ষুকের মরদেহের পাশে মিলল কয়েক লাখ টাকা appeared first on bd24report.com.

Leave a Reply

Your email address will not be published.