September 26, 2022

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় অটোরিকশা চালক হত্যার রহস্য এক সপ্তাহের মধ্যে উদঘাটন করল আখাউড়া থান পুলিশ। এই ঘটনায় ২ জন ঘাতককে আটক করা হয়েছে।

আটককৃতরা হলেন, হবিগঞ্জ সদর উপজেলা আনোয়ার পুর এলাকার মৃত আব্দুল বারি ছেলে জুলহাস উরফে শাহীন (৩৮) বর্তমান পৌর শহরের রাধানগর লাল বাজার এলাকার বাসিন্দা, অপর একজন পৌরশহরের দেবগ্রাম এলাকার মৃত মালু মিয়ার ছেলে মোঃ হানিফ(৫৫) ।

পুলিশের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানা যায়, নিহত অটোরিকশা চালক নাজিরুল ইসলামকে ঘটনার দিন রাত আনুমানিক ১২ টার সময় সড়ক বাজার থেকে খরমপুর মাজার শরীফে যাওয়ার জন্য আটককৃত ব্যাক্তিরা ভাড়া করেন। বাইপাস এলাকার পূর্ব মসজিদ পাড়া এলাকায় পৌছালে আটককৃতরা নিহত নাজিরুলের অটোরিকশা টুলবক্স থেকে টাকা পয়সা ও তার কাছে থাকা মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়। একপর্যায় অটোরিকশা চালকের শরীলে হাত দিয়ে ছিনতাই করার চেষ্টা করলে অটোরিকশা চালক বাধা দিলে আটককৃতরা ধারালো অস্ত্র দিয়ে তার শরীলে আঘাত করে, এতে ঘটনাস্হলে অটোরিকশা চালক নাজিরুল মৃত্যু বরন করেন।

আজ ৩ মার্চ বৃহস্পতিবার আসামীদের আটক করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া আদালতে প্রেরন করলে বিজ্ঞ ম্যাজিস্টেট রকিবুল হাসান রকির আমলী আদালত (৩) এর নিকট আটককৃতরা দোষ স্বীকার করে স্বীকারোক্তিমূলক এই জবানবন্দি দেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে আখাউড়া থানার ওসি (তদন্ত) সঞ্জয় কুমার সরকার জানান, নিহত ব্যাক্তির মোবাইল ট্র্যাকিং এর মাধ্যমে হানিফকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে অপর আসামী
জুলহাস উরফে শাহিনকে সনাক্ত করে আটক করা হয়। আটককৃত ব্যাক্তিদের নিয়মিত মামলা রুজু করে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য গত ২৩ ফেব্রুয়ারী বৃহস্পতিবার রাত ১টার সময় পৌর শহরের মসজিদপাড়া বাইপাস পল্লী বিদুৎ অফিস সংলগ্ন এলাকায় রাস্তার পাশ থেকে অটোরিকশা চালক নাজিরুল ইসলামকে
মৃত অবস্থায় উদ্ধার করেন পুলিশ।

নিহত ব্যাক্তি জেলা সদরের সেন্দা গ্রামের আবু সালেকের পুত্র ও বর্তমান আখাউড়া পৌরশহরের দূর্গাপূর ভাড়া থাকতেন।

হাসান/বার্তাবাজার/এম.এম

Leave a Reply

Your email address will not be published.