September 26, 2022

অবশেষে দীর্ঘ ২৪ বছর পর পাকিস্তানে পা রাখল অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল। গতকাল রবিবার ভোরে একটি বিশেষ বিমানে ইসলামাবাদে পৌঁছেছে অজি দল। এরপর কড়া নিরাপত্তার মধ্যদিয়ে হোটেলে পৌঁছে তারা। যাত্রাকালের একটি ছবি টুইটারে পোস্ট করে অস্ট্রেলিয়ার তারকা ব্যাটার স্টিভেন স্মিথ লিখেছেন ‘পাকিস্তানে পৌঁছে গেলাম’। এরপর প্যাটট্রিক কামিন্স জানান, পাকিস্তানে বেশ ভালোই নিরাপত্তা পাচ্ছি।

এমন পরিস্থিতিতেই খবর এলো, সোশ্যাল মিডিয়ায় অস্ট্রেলিয়ান স্পিনার অ্যাস্টন অ্যাগারের স্ত্রীর কাছে তার প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হয়েছে। এ বিষয়ে তদন্ত করছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া, পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড ও সরকারি নিরাপত্তা সংস্থাগুলো। এখন ধারণা করা হচ্ছে, ভারত থেকে এই হুমকির বার্তা পাঠানো হয়েছে। দ্য সিডনি মর্নিং হেরাল্ড ও দ্য এইজ অ্যাগারের স্ত্রী মেডেলেইনকে সোশ্যাল মিডিয়ায় পাঠানো ওই বার্তা খুঁজে বের করেছে এবং অবিলম্বে সিএ ও পিসিবির কাছে তা রিপোর্ট করা হয়।

এ বিষয়ে দলীয় এক মুখপাত্র নিশ্চিত করেছেন, অ্যাগারকে প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হয়েছে। কিন্তু দলের নিরাপত্তা বিভাগ তদন্ত করেছে এবং এটি কোনো বিশ্বাসযোগ্য হুমকি বলে তারা বিশ্বাস করে না। জানা গেছে, একটি ভুয়া ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট থেকে এই হুমকি দেওয়া হয়েছে। খুব সম্ভবত ভারত থেকে। ঐতিহাসিক সফরের মাঝপথে এমন ঘটনায় বিব্রতবোধ করছে পিসিবি। ২০০৯ সাল থেকে নিরাপত্তাজনিত কারণে মাত্র ছয় টেস্ট পাকিস্তান ঘরের মাঠে আয়োজন করতে পেরেছে।

সিএ এক বিবৃতি দিয়ে নিশ্চিত করেছে, সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট দেওয়ার বিষয়টি সত্যি। তবে অস্ট্রেলিয়ান শীর্ষ ক্রিকেট সংস্থার মতে, এই হুমকি কোনো ঝুঁকি নয়। সিডনি মর্নিং হেরাল্ড ও দ্য এইজ ওই বার্তার একটি কপি প্রকাশ করেছে, যেখানে লেখা, ‘তোমার স্বামী অ্যাস্টন অ্যাগারের জন্য একটি সতর্কবার্তা। সে যদি পাকিস্তানের বিপক্ষে সফর করতে আসে তাহলে জীবন নিয়ে ফিরতে পারবে না।’

ওই বার্তায় অ্যাগারের সন্তানকেও উল্লেখ করা হয়। কিন্তু তার কোনো সন্তানই নেই। অ্যাগার অবশ্য তার স্ত্রীর কাছে পাঠানো হুমকি নিয়ে চিন্তিন নন। তদন্ত প্রক্রিয়ায় তার অগাধ বিশ্বাস। আগামী মঙ্গলবার প্রথম ট্রেনিং সেশন শুরু করবে সফরকারীরা। এরপর শুক্রবার রাওয়ালপিন্ডিতে প্রথম টেস্ট।

The post পাকিস্তানে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেটারকে হত্যার হুমকি appeared first on bd24report.com.

Leave a Reply

Your email address will not be published.