October 6, 2022

আইজিপি বলেছেন, ‘গত দুই বছরে সবার সহযোগিতায় আন্তর্জাতিক মানের হাসপাতালে পরিণত হয়েছে আমাদের কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতাল। আমরা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আরও বেশি সহযোগিতা সাপোর্ট প্রত্যাশা করছি।

বাংলাদেশ পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ বলেছেন, ‘জুনিয়র কোনো পুলিশ সদস্যের মৃত্যুর পর পাঁচ লাখ টাকা আর্থিক অনুদান পেত পরিবার। তখন বিল পাস করত জেলা পুলিশ সুপার। সরকার ২০২০ সালে আট লাখ করার পর সেই বিল পাস করে জেলা প্রশাসকরা। এতে দীর্ঘসূত্রতা তৈরি হয়েছে। ২০২০ সালে কর্তব্যরত অবস্থায় মারা যায় ৩৭৭ পুলিশ সদস্য। এরমধ্যে মাত্র ৭৯ পরিবার টাকা পেয়েছেন। বাকি সব পেন্ডিং।’

আইজিপি স্বরাষ্ট্র সচিবের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, ‘আমাদের জুনিয়র কোনো সদস্য যখন দায়িত্বরত অবস্থায় মারা যায় তখন পুরো পরিবার অথৈ সমুদ্রে নিক্ষিপ্ত হয়। জেলা প্রশাসকরা অনেক ব্যস্ত থাকেন। এই দায়িত্ব যদি আবারো পুলিশ সুপারদের কাছে যায় তাহলে এই সমন্বয়হীনতা থাকবে না। মৃত পুলিশ সদস্যদের অসহায় পরিবারগুলোর অনেক উপকার হবে। আশা করছি, এই অনিশ্চয়তা কাটাতে উদ্যোগী হবে মন্ত্রণালয়।’

‘পুলিশ মেমোরিয়াল ডে’ উপলক্ষে ২০২১ সালে কর্তব্যরত অবস্থায় জীবন উৎসর্গকারী পুলিশ সদস্যদের প্রতি সম্মান জানিয়ে পুলিশ মেমোরিয়ালে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও তাদের পরিবারবর্গকে স্বীকৃতি স্মারক প্রদান অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে একথা বলেন তিনি।

মঙ্গলবার (১ মার্চ) বেলা ১১টায় পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদের সভাপতিত্বে রাজধানীর মিরপুর-১৪তে পুলিশ স্টাফ কলেজ (পিএসসি) কনভেনশন হলে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বরাষ্ট্র সচিব আখতার হোসেন।

অনুষ্ঠানে আইজিপি বলেন, ‘শান্তিকালীন সময়ে যারা দুষ্কৃতিকারী, জনগণ, সমাজ, রাষ্ট্র ধ্বংসের জন্য লিপ্ত হয় তাদের বিরুদ্ধেই পুলিশই ক্রমাগত যুদ্ধে লিপ্ত থাকে। এই যুদ্ধ সন্ত্রাসী, অপরাধী, জঙ্গি, গ্যাং, চোর-ডাকাতদের বিরুদ্ধে। যারা শান্তিভঙ্গ কিংবা বিনষ্ট করতে চায় তাদের বিরুদ্ধে। যুদ্ধ থাকলে মৃত্যু অনিবার্য। আমরা শান্তিকালীন সময়ে প্রতিনিয়ত যুদ্ধ করছি দেশ, জনগণ, সমাজে শান্তিশৃঙ্খলা, নিরাপত্তার জন্য। এজন্য আত্মত্যাগ করছে পুলিশ সদস্যরা। পুলিশ লাইন ডিউটিতে প্রাণ হারায়। প্রতিবছর শত শত সহকর্মীকে হারাই কর্তব্যরত অবস্থায়। ৩৪৬ জন পুলিশ সদস্যকে হারিয়েছি গত বছর। এরমধ্যে শুরু করোনার দুই বছরে আমরা ১০৬ জন পুলিশ সদস্যকে হারিয়েছি। আজ ১৩৮ পরিবারকে আর্থিক সহায়তা করা হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা পুলিশ সদস্যদের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে কমরেড, সহকর্মী, বন্ধু, কলিগ, প্রিয়মুখকে হারিয়েছি। শুধু সমবেদনা জানানো নয়। আমাদের বিরাট অনুরণন আছে, শোকাবহ অনুরণন রয়েছে। আমরা তাদের আত্মত্যাগকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে থাকি। কারণ আমরা বীরের জাতি। বীরের আত্মত্যাগ আরও বীরের জন্ম দেবে। কেউ আহত হন, নিহত হন, মৃত্যুবরণ করেন। বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস তাদের অবদানকে সর্বদা কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করছে।’

The post ডিসি নয়, বিল পাসের দায়িত্ব এসপিকে দেওয়া উচিত: আইজিপি appeared first on bd24report.com.

Leave a Reply

Your email address will not be published.