October 2, 2022

‘জায়গাটি ছোটো একটি গুহার মতো। যখন বোমা শুরু হয়, তখন আমরা এখানে এসে আশ্রয় নেই। আমাদের বিদ্যুৎ নেই, পানি ফুরিয়ে আসছে’। অ্যাপার্টমেন্ট ভবনের বেজমেন্ট থেকে টেলিফোনে বিবিসিকে এমনটাই জানান ক্যামেরুন থেকে আসা ২২ বছরের ক্রিস্টোফার।

তীব্র রুশ হামলার মুখে ইউক্রেনের দক্ষিণাঞ্চলীয় বন্দর শহর খেরসনে বাঙ্কার এবং বেজমেন্টে আশ্রয় নেওয়া আফ্রিকার শিক্ষার্থীরা সাহায্যের জন্য এভাবেই আবেদন জানাচ্ছেন।

ডোমবুয়া শহরের অন্য প্রান্তে একইরকম একটি শেল্টারে গ্যাবন, সেনেগাল ও ক্যামেরুন থেকে আসা বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থীর সঙ্গে আটকে রয়েছেন গিনি থেকে পড়তে আসা মামাদি।

তিনি বলেন,‘আমরা সরকারের সাহায্য চাইছি। আমাদের পানি নেই, আলো নেই। আমরা খেরসনে আটকা পড়েছি। বেরুনোর কোনো উপায় নেই’।

রুশ আগ্রাসনের পর ইউক্রেন থেকে পোল্যান্ডে যে লাখ রাখ মানুষ গত এক সপ্তাহে পালিয়ে গেছেন তাদের মধ্যে প্রায় ৭ হাজারই আফ্রিকান।

ইউক্রেনের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর খারকিভ দখলে নিয়েছে রাশিয়ার সেনাবাহিনী। বুধবার (২ মার্চ) ভোর ৬টার দিকে পুরো শহর দখলে নেয় তারা। তবে যুদ্ধ এখনো চলছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

বার্তাবাজার/ না. সা.

Leave a Reply

Your email address will not be published.