October 6, 2022

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে শনিবার (২৬ফেব্রুয়ারি) পুরোদেশে ১ কোটি ডোজ টিকা দেওয়ার কার্যক্রম শুরু করেছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এই কার্যক্রম আগামী (২৮ ফেব্রুয়ারি) পর্যন্ত বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ সরকার। এ টিকার মাধ্যমে মোট জনসংখ্যার ৭০ শতাংশকে টিকার আওতায় আনার লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে।

আজ শনিবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা সংবাদমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

এর আগে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানান, শনিবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) করোনার প্রথম ডোজ টিকা নেওয়ার শেষ দিন ছিলো। রবিবার থেকে সাময়িকভাবে বন্ধ থাকবে প্রথম ডোজ দেওয়ার কাজ। চলবে দ্বিতীয় ও তৃতীয় ডোজ (বুস্টার) টিকা কর্মসূচি।

এই দিকে, শনিবার থেকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিব লোকমান হোসেন মিয়া জানান, দেশে যতদিন করোনাভাইরাস থাকবে, ততদিন টিকার এই কার্যক্রম চলতে থাকবে।

১২ বছর বা তার বেশি বয়সী যে কেউ দেশব্যাপী যেকোনো কেন্দ্রে বা বুথে রেজিস্ট্রেশন বা নথি ছাড়াই টিকার ১ম ডোজ নিতে পারবেন। আজ দেশজুড়ে অন্তত ১ কোটি মানুষকে প্রথম ডোজের আওতায় আনার চেষ্টা রয়েছে।

গত বছরের সাত ফেব্রুয়ারি ত থেকে দেশে করোনাভাইরাস টিকার প্রথম ডোজ দেওয়া শুরু হয়। ৮ এপ্রিল শুরু হয় দ্বিতীয় ডোজ দেওয়ার কার্যক্রম। আর গত বছরের ২৮ ডিসেম্বর তৃতীয় ডোজ বা বুস্টার ডোজ দেওয়া শুরু করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

বার্তাবাজার/আর এম সা

Leave a Reply

Your email address will not be published.